পাঠ্যসূচিতে যুক্ত হচ্ছে পর্নোগ্রাফি ক্লাস (ভিডিও)

474

কঠোর সমালোচনার পরও সব উপেক্ষা করে পর্নোগ্রাফি ক্লাস চালু করতে যাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্রের ওয়েস্টমিনিস্টার কলেজ। মে মাস থেকেই পাঠ্যসূচিতে যুক্ত হতে যাচ্ছে বিতর্কিত কোর্সটি।

সল্টলেক সিটিতে অবস্থিত প্রায় দেড়শ বছরের ঐতিহ্যবাহী কলেজ ওয়েস্টমিনিস্টার। বেসরকারি লিবারেল আর্ট কলেজটি যুক্তরাষ্ট্রের অন্যতম সেরা কলেজ হিসেবে বিবেচিত।

কলেজটিতে সব বছরেই স্প্রিং সেশনে স্বল্পমেয়াদী কিছু কোর্স করতে হয় ছাত্র-ছাত্রীদের। মূল কোর্সের ক্রেডিট পূরণ করতে এসব কোর্স তাদের করতে হয়। এবার তাতে যুক্ত হতে যাচ্ছে পর্নোগ্রাফি কোর্স।

ওয়েস্টমিনিস্টার কলেজ পর্নোগ্রাফি কোর্স শুরু করতে যাচ্ছে- ঘটনাটি প্রথম টুইট করে জানান রক্ষণশীল তকমা পাওয়া টক শো সঞ্চালক ক্যানডেস ওয়েনস।

ক্যানডেস ওয়েনস তার টুইটে জানান, তিনি ভেবেছিলেন বিষয়টি রসিকতা। কিন্তু তা রসিকতা নয়, সত্যি। সল্টলেক সিটির ওয়েস্টমিনিস্টার কলেজে সত্যি সত্যিই পর্নোগ্রাফি ক্লাসে ভর্তি হওয়া যাবে। ছাত্র-ছাত্রীরা একসঙ্গে ক্লাসে বসে পর্নো ছবি দেখবে। তারপর যৌনতা নিয়ে আলাপ-আলোচনা করবে। এটা নাকি অনেকটা শিল্পের মতোই একটি ব্যাপার!

ঘটনাটি চাউর হওয়ার পর থেকেই কলেজের ফোনের পাশাপাশি সোশ্যাল মিডিয়ায় আক্রমণাত্মক নানা ধরনের বার্তা আসতে থাকে। কিন্তু কোনো কিছুতেই দমে যাওয়ার পাত্র নয় ওয়েস্টমিনিস্টার কলেজ কর্তৃপক্ষ।

এ প্রসঙ্গে ওয়েস্টমিনিস্টার কলেজ কর্তৃপক্ষ সাফ জানিয়ে দিয়েছে, পিছিয়ে যাওয়ার কোনো রকম ইচ্ছে তাদের নেই। তারা পূর্ণাঙ্গ অ্যাকাডেমিক স্বাধীনতায় বিশ্বাস করে। যৌনতা কিংবা পর্নোগ্রাফির মতো স্পর্শকাতর বিষয়গুলো নিয়ে খোলামেলা আলোচনা করতে তারা অঙ্গীকারবদ্ধ।

কলেজ কর্তৃপক্ষ আরও জানিয়েছে, বিশেষভাবে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত পিএইচডিধারী দিয়ে পর্নোগ্রাফি ক্লাস নেওয়া হবে। ছাত্র-ছাত্রীরা অস্বস্তি বোধ করলে বা অন্য যে কোনো কারণে যেকোনো সময় শ্রেণিকক্ষ ত্যাগ করতে পারবে। সেক্ষেত্রে কোনো রকম বাধা কিংবা শাস্তির মুখোমুখি হতে হবে না তাদের।

ইতোমধ্যে প্রাপ্ত বয়স্ক জন বিশেক ছাত্র-ছাত্রী পর্নোগ্রাফি কোর্সে ভর্তি হয়ে গেছেন। পর্নো ছবি দেখার পাশাপাশি বিশ্লেষণ, কথোপকথন ও পর্যবেক্ষণ অন্তর্ভুক্ত রয়েছে এই কোর্সে।

এক মাসব্যাপী পর্নোগ্রাফি কোর্সটির ক্লাস হবে সপ্তাহে দুবার। একেকটি ক্লাসের ব্যাপ্তি হবে তিন ঘণ্টা করে।

ওয়েস্টমিনিস্টার কলেজের অনলাইন ক্যাটালগে ফিল্ম-৩০০০ পর্নো কোর্সের বিবরণে বলা হয়েছে, রোববার রাতের ফুটবল ম্যাচের চেয়েও বেশি জনপ্রিয় অ্যাপল পাইয়ের মতো হার্ডকোর পর্নোগ্রাফি। কোটি কোটি ডলারের একটি শিল্প এটি।

কোর্সের বিবরণে আরও বলা হয়েছে, পর্নো শিল্পকে সহায়তা প্রদানের উদ্দেশ্যে আমরা যৌনতাবিষয়ক ট্যাবু থেকে বেরিয়ে আসার চেষ্টা করবো। আমরা একসঙ্গে পর্নোগ্রাফি ছবি দেখব। বিভিন্ন জাতি, শ্রেণি ও লিঙ্গের যৌনতার বিষয় নিয়ে খোলামেলা আলোচনা করব আমরা।

ওয়েস্টমিনিস্টার কলেজে পর্নোগ্রাফি ক্লাস নেবেন সহযোগী অধ্যাপক আইলিন টোরেস। তিনি জানান, শুধু পর্নো ছবি দেখাই নয়, পর্নোগ্রাফি সিনেমার ইতিহাস নিয়ে আলোচনা হবে এই কোর্সে। পর্নোগ্রাফির বিকশিত হওয়ার কারণ নিয়েও আলাপ হবে। কেউ কেউ ভাবছেন, এই কোর্স নিতে ছাত্র-ছাত্রীদের বাধ্য করা হচ্ছে। কিন্তু আদতে তা সত্য নয়।

আইলিন টোরেস আরও জানান, ক্লাসটি সবার জন্য নয় প্রযোজ্য নয়। কোর্সের বিষয়গুলো বাড়াবাড়ি রকমের রগরগে। ধর্ষণ প্রবণতা, ভায়োলেন্ট পর্নোগ্রাফিসহ গুরুত্বপূর্ণ খুঁটিনাটি আরও নানা বিষয় নিয়ে আলোচনা হবে ক্লাসে। মূলত পর্নোগ্রাফি নিয়ে খোলামেলা আলোচনার নিরাপদ স্থান গড়ে তোলাই এই কোর্সের লক্ষ্য।