টিপকাণ্ডে ফেঁসে গেলেন আরেক পুলিশ সদস্য

408
টিপকান্ডে পুরুষদের প্রতিবাদ নিয়ে ফেসবুকে অশ্লীল মন্তব্য করে ফেঁসে গেছেন সিলেট জেলা পুলিশের আদালত পরিদর্শক লিয়াকত আলী।
টিপকান্ডে পুরুষদের প্রতিবাদ নিয়ে ফেসবুকে অশ্লীল মন্তব্য করে ফেঁসে গেছেন সিলেট জেলা পুলিশের আদালত পরিদর্শক লিয়াকত আলী।

পুলিশ কনস্টেবলের পর এবার এক পুলিশ পরিদর্শক ফেঁসে গেলেন টিপকান্ডে। পুলিশ সদস্যের টিপকাণ্ডে উন্মাতাল সোশ্যাল মিডিয়া। চলছে আলোচনা, সমালোচনা, প্রতিবাদ, লাইক, কমেন্ট আর শেয়ারের বন্যা। এবার টিপকান্ডে পুরুষদের প্রতিবাদ নিয়ে ফেসবুকে অশ্লীল মন্তব্য করে ফেঁসে গেছেন সিলেট জেলা পুলিশের আদালত পরিদর্শক লিয়াকত আলী। অশ্লীল মন্তব্য করায় তাকে ক্লোজড করা হয়েছে।

টিপ পরায় রাজধানীর তেজগাঁও কলেজের প্রভাষক লতা সমাদ্দারকে ফার্মগেট এলাকায় হেনস্তা ও মোটরসাইকেল গায়ের ওপর তুলে দিয়ে হত্যাচেষ্টাকারী পুলিশ সদস্যকে শনাক্ত করার পর বরখাস্ত করা হয়েছে। তবে তার আগেই প্রতিবাদে সরব হয় সোশ্যাল মিডিয়া। প্রতিবাদের অংশ হিসেবে তারকা, সাংবাদিকসহ অনেক পুরুষ কপালে টিপ পরেন। পুরুষদের প্রতিবাদের এমন অভিনব ধরন পুরুষ হয়ে ঠিক হজম করতে পারেননি সিলেট জেলা পুলিশের আদালত পরিদর্শক লিয়াকত আলী।

সোমবার দুপুরে লিয়াকত আলী তার ফেসবুকে একটি পোস্ট দেন।

সোমবার দুপুরে লিয়াকত আলী তার ফেসবুকে একটি পোস্ট দেন। সেখানে তিনি লেখেন, টিপ নিয়ে নারীকে হয়রানির করার প্রতিবাদে অনেক পুরুষ নিজেরাই কপালে টিপ লাগাইয়া প্রতিবাদ জানাচ্ছে। কিন্তু আমি ভবিষ্যৎ ভাবনায় শঙ্কিত।

নারীর পোশাক নিয়ে নিজের অশ্লীল দৃষ্টিভঙ্গির বহিঃপ্রকাশ ঘটিয়ে লিয়াকত আলী আরও লেখেন, বিভিন্ন শহরে অনেক নারীরা যেসব খোলামেলা পোশাক পরে চলাফেরা করেন তার মধ্যে অনেকেরই ব্রায়ের ওপরের দিকে প্রায় অর্ধেক আনকভার থাকে। পাতলা কাপড়ের কারণে বাকি অর্ধেকও দৃশ্যমান থাকে। এখন যদি কোনো পুরুষ এভাবে ব্রা পরার কারণে কোনো নারীকে হয়রানি করে, তবে কি তখনও আজকে কপালে টিপ লাগানো প্রতিবাদকারী পুরুষগণ একইভাবে ব্রা পরে প্রতিবাদ করবেন?