ভারতে করোনা মারার যন্ত্র আবিষ্কার

222
করোনাভাইরাসকে নির্মূল করতে যন্ত্র আবিষ্কার করলেন ভারতীয় আবিষ্কারক মান্দাজি নরসিমা চারিয়া
করোনাভাইরাসকে নির্মূল করতে যন্ত্র আবিষ্কার করলেন ভারতীয় আবিষ্কারক মান্দাজি নরসিমা চারিয়া

সেই ২০১৯ সাল থেকে করোনাভাইরাস নাকানি চুবানি খাওয়াচ্ছে মানব জাতিকে। টিকা আবিস্কার হলেও করোনা থেকে নিস্তার মেলেনি পুরোপুরি। প্রায়ই ধরন পাল্টে নতুন শক্তি নিয়ে আঘাত হানছে অদৃশ্য প্রাণঘাতী ভাইরাসটি। গত দুই বছরেরও বেশি সময় ধরে করোনায় নাস্তানাবুদ মানুষ। এবার মানুষের চিরশত্রুতে পরিণত হওয়া করোনাভাইরাসকে নির্মূল করতে যন্ত্র আবিষ্কার করলেন ভারতীয় এক আবিষ্কারক।

হায়দরাবাদের অধিবাসী মান্দাজি নরসিমা চারিয়া দাবি করেছেন, ইনস্টা শিল্ড নামে করোনা নির্মূলের যন্ত্র আবিষ্কার করেছেন তিনি। তার আবিষ্কৃত যন্ত্রটি করোনাভাইরাসকে অকার্যকর করে দিতে সক্ষম। যন্ত্রের কার্যকারিতা ৯৯.৯ শতাংশ বলেও দাবি করেছেন তিনি। তার এই যুগান্তকারী আবিষ্কার নিয়ে শোরগোল উঠেছে চারদিকে।

বিজ্ঞানীরা করোনাভাইরাসকে নির্মূল করার নতুন নতুন পথ খুঁজে ফিরছেন আজও। সেই দলেরই লোক নিজেকে গ্রামীণ আবিষ্কারক বলে পরিচয় দেওয়া মান্দাজি নরসিমা। তিনি করোনা মারতে সেন্টার ফর সেলুলার অ্যান্ড মলিকিউলার বায়োলজি স্বীকৃত একটি প্রযুক্তি ব্যবহার করেছেন। এই প্রযুক্তি ভাইরাসকে ক্ষয় করতে পারে। আবদ্ধ জায়গায় বাতাস ও পরিপার্শ্বে থাকা ভাইরাসের ৯৯.৯ শতাংশকে অক্ষম করে দিতে পারবে করোনা মারার যন্ত্র ইনস্টা শিল্ড- অন্তত এমনটাই দাবি এর আবিষ্কারকের।

মূলত প্লাগ অ্যান্ড প্লে ডিভাইস ইনস্টা শিল্ড। প্লাগ ইন করলে ওই যন্ত্রটি তীব্র গতি ও শক্তিসম্পন্ন ইলেকট্রন উৎপন্ন করবে। করোনা ভাইরাসের ধনাত্মক প্রোটিনের সঙ্গে যুক্ত হবে এই ঋণাত্মক শক্তিসম্পন্ন ইলেকট্রন কণা। এতে করে ওই প্রোটিন সংক্রমণের শক্তি হারাবে। একটি যন্ত্র একবারে ৫০০০ বর্গফুট এলাকাকে এভাবে ভাইরাসমুক্ত করতে পারবে। আর তার জন্য সময় লাগবে সর্বোচ্চ দুই ঘণ্টা।