১৫ দিন ধরে নিখোঁজ মাদ্রাসাছাত্র

76
লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা উপজেলার সিঙ্গিমারী আলিমের ডাঙ্গা হাফিজিয়া মাদ্রাসার ছাত্র হাফেজ রাব্বিতুল ইসলাম রাব্বী নিখোঁজ হওয়ার ১৫ দিন পরও উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি।
লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা উপজেলার সিঙ্গিমারী আলিমের ডাঙ্গা হাফিজিয়া মাদ্রাসার ছাত্র হাফেজ রাব্বিতুল ইসলাম রাব্বী নিখোঁজ হওয়ার ১৫ দিন পরও উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি।

নুরনবী সরকার, লালমনিরহাট প্রতিনিধি : লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা উপজেলার সিঙ্গিমারী আলিমের ডাঙ্গা হাফিজিয়া মাদ্রাসার ছাত্র হাফেজ রাব্বিতুল ইসলাম রাব্বী নিখোঁজ হওয়ার ১৫ দিন পরও উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি।

নিখোঁজের ঘটনায় মামলা হলেও এখন পর্যন্ত কোনো আসামী গ্রেফতার হয়নি। এদিকে নিখোঁজ রাব্বীকে উদ্ধার ও তাকে অপহরণের সাথে জড়িতদের গ্রেফতারের দাবীতে বৃহস্পতিবার সকালে মানববন্ধন করেছেন স্থানীয় লোকজন। হাতীবান্ধা উপজেলা পরিষদ গেটের সামনে লালমনিরহাট-বুড়িমারী মহাসড়কে এই মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

নিখোঁজ হাফেজ রাব্বিতুল ইসলাম রাব্বী সিঙ্গিমারী গ্রামের রশিদুল ইসলামের পুত্র। গত ৭ জুলাই উপজেলার ডাউয়াবাড়ী ইউনিয়নের সোহাগের বাজার এলাকা থেকে নিখোঁজ হয় সে। তবে তার পরিবারের দাবী, নিখোঁজের নাটক সাজিয়ে রাব্বীকে অপহরণ করা হয়েছে।

স্থানীয়রা জানান, সিঙ্গিমারী আলিমের ডাঙ্গা হাফিজিয়া মাদ্রাসার দুজন শিক্ষক রবিউল ইসলাম ও রিয়াজুল ইসলামের সঙ্গে ডাউয়াবাড়ী ইউনিয়নের সোহাগের বাজার এলাকায় তাবলীগ জামাতে যায় হাফেজ রাব্বিতুল ইসলাম রাব্বী। ৭ জুলাই রাব্বীর পরিবারকে জানানো হয়, তিস্তা নদীতে গোসল করতে গিয়ে রাব্বী নিখোঁজ হয়েছে।

এ ঘটনায় ৭ জুলাই রাব্বীর পরিবার স্থানীয় থানায় একটি নিখোঁজের জিডি করেন। কিন্তু পরে তার পরিবার জানতে পারে, নিখোঁজের নাটক সাজিয়ে হাফেজ রাব্বীকে অপহরণ করেন তার মাদ্রাসার দুই শিক্ষক রবিউল ইসলাম ও রিয়াজুল ইসলাম।

এ ঘটনায় ১৭ জুলাই বিজ্ঞ সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ও আমলী আদালত-৪, লালমনিরহাটে মামলা দায়ের করেন রাব্বীর বাবা রশিদুল ইসলাম। আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে আসামীদের গ্রেফতারের নির্দেশ দিলেও এখন পর্যন্ত আসামীদের গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ।

মামলার বাদীর অভিযোগ, আসামীরা প্রকাশ্য ঘুরে বেড়াচ্ছে। উল্টো বাদীকে হুমকিও দিচ্ছে। এজন্য স্থানীয় লোকজন মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশে করেন।

হাতীবান্ধা থানার ওসি শাহ আলম জানান, আদালতের আদেশে অভিযোগটি নথিভুক্ত করা হয়েছে। আসামীদের গ্রেফতারের জন্য অভিযান অব্যাহত রয়েছে।