দুর্নীতির মামলায় সু চির পাঁচ বছর কারাদন্ড (ভিডিও)

111

মিয়ানমারের গণতন্ত্রপন্থী নেত্রী অং সান সু চির বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ তোলার পর এবার দোষী সাব্যস্ত করে পাঁচ বছরের কারাদন্ডাদেশ প্রদান করা হয়েছে।

সামরিক অভ্যুত্থানে ক্ষমতাচ্যুত অং সান সু চিকে এই কারাদণ্ডাদেশ দিয়েছে মিয়ানমারের সামরিক আদালত।

পাঁচ বছরের কারাদন্ডাদেশ দেওয়ায় সর্বমোট ১১ বছরের সাজা হলো অং সান সু চির। এর আগেও নগন্য অপরাধে সু চিকে দোষী সাব্যস্ত করে ছয় বছরের সাজা প্রদান করে মিয়ানমারের জান্তা সরকারের আদালত।

সবমিলিয়ে মিয়ানমারের জান্তা সরকার শান্তিতে নোবেলজয়ী নেত্রী সু চির বিরুদ্ধে দুর্নীতির ১১টি অভিযোগ এনেছে। সেগুলোর মধ্যে প্রথম মামলার সাজার রায় ঘোষণা করা হয়েছে। আরও ১০টি মামলার বিচার প্রক্রিয়া এখনও চলমান আছে।

মিয়ানমারের বর্ষীয়ান রাজনীতিবিদ সু চির বয়স এখন ৭৬ বছর। তাকে অজ্ঞাত কোনো এক জায়গায় আটকে রাখা হয়েছে। কেউ তার সঙ্গে দেখা-সাক্ষাৎ কিংবা যোগাযোগ করতে পারছে না।

শুধু তাই নয়, মিয়ানমারের জান্তা সরকার সু চির বিচারের তথ্য প্রকাশেও বাধা সৃষ্টি করছে। বিচার প্রক্রিয়া কোনো কিছু যাতে আদালতের বাইরে যেতে না পারে সেজন্য সু চির আইনজীবীদের ওপর রীতিমতো আদেশ জারি করা হয়েছে।

অং সান সু চির এই বিচারকে প্রহসন বলে অভিহিত করেছে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়। এছাড়া অং সান সু চি তার বিরুদ্ধে তোলা সবগুলো অভিযোগ মিথ্যা বলে দাবি করেছেন।