সিলেটে প্রেমিকাকে পুলিশের হাতে তুলে দিলেন প্রেমিক

421
সিলেটে প্রেমিকাকে পুলিশের হাতে তুলে দিলেন প্রেমিক
সিলেটে প্রেমিকাকে পুলিশের হাতে তুলে দিলেন প্রেমিক

কথায় বলে, ন্যাড়া একবারই বেলতলায় যায়। বছর খানেক আগে প্রেমিকাকে নিয়ে পালিয়ে ধরা পড়ে দেড় মাস জেল খাটেন প্রেমিক ইমরান। এক বছরের মাথায় সম্প্রতি সেই প্রেমিকা আবার হাজির প্রেমিকের বাসায়। এবার তিনি সরাসরি প্রেমিককে বিয়ের প্রস্তাব দিয়ে বসেন প্রেমিকের পরিবারের সদস্যদের কাছে। কিন্তু তাকে গ্রহণ করতে নারাজ প্রেমিক। তবে প্রেমিকা নাছোড়বান্দা। তিনি সাফ জানিয়ে দেন, কিছুতেই বিয়ে না করে ইমরানের বাড়ি ছাড়বেন না। অগত্যা ৯৯৯-এ ফোন দিয়ে পুলিশের সাহায্য চান ইমরান। পুলিশ এসে তার বাড়ি থেকে প্রেমিকাকে নিয়ে চলে যায় থানায়।

সোমবার, ২৮ মার্চ সিলেটের বিশ্বনাথ উপজেলার রামপাশা ইউনিয়নের দশদল গ্রামে চাঞ্চল্যকর এই ঘটনা ঘটে।

প্রেমিকের পুরো নাম ইমরান আহমেদ, বয়স ২৩ বছর। তিনি দশদল গ্রামের সমুজ আলীর ছেলে। আর ইমরানের প্রেমিকা বয়সে তার চেয়ে পাঁচ বছরের ছোট। অষ্টাদশী তরুণীর বাড়ি একই উপজেলার নরশিংপুর গ্রামে। অনেক ধরেই চুটিয়ে প্রেম করছেন তারা।

দুরন্ত প্রেমের জোয়ারে ভেসে সোমবার দুপুরে ইমরানের বাড়িতে গিয়ে ওঠেন ওই তরুণী। তখন অবশ্য বাড়ির বাইরে ছিলেন ইমরান। মেয়ের পিছু পিছু তার পরিবারের সদস্যরাও ঢুকে পড়েন ইমরানদের বাড়িতে। কিন্তু তারা অনেক চেষ্টা করেও মেয়েকে বাড়ি ফেরাতে পারেন না।

এক পর্যায়ে পরিবারের সদস্যদের কাছ থেকে ঘটনা জানতে পেরে ৯৯৯-এ ফোন দিয়ে পুলিশের সহযোগিতা কামনা করেন বেচারা ইমরান। খবর পেয়ে ইমরানের বাড়িতে যায় পুলিশ। সেখান থেকে তরুণী ও তার পরিবারের সদস্যদের থানায় নিয়ে যাওয়া হয়। পরে অবশ্য অন্যত্র বিয়ে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়ে পুলিশের কাছ থেকে নিজের জিম্মায় নিয়ে নেন তরুণীর মা।

এবারই প্রথম নয়। গত বছরের শুরুর দিকেও ইমরানের হাত ধরে উধাও হয়েছিলেন ওই তরুণী। পরে সিলেটের গোয়াইনঘাট উপজেলা থেকে ইমরানকে আটক করে পুলিশ। ইমরানের বিরুদ্ধে অপহরণ মামলা হয়। সেই মামলায় দেড় মাস কারাগারের চারদেয়ালেও বন্দী থাকতে হয় বেচারা ইমরানকে।