শ্রীলংকায় জ্বালানি তেলের হাহাকার, লাইনে দাঁড়িয়ে অন্তত ১০ জনের মৃত্যু

99
শ্রীলংকায় জ্বালানি তেলের হাহাকারে লাইনে দাঁড়িয়ে অন্তত ১০ জনের মৃত্যু
শ্রীলংকায় জ্বালানি তেলের হাহাকারে লাইনে দাঁড়িয়ে অন্তত ১০ জনের মৃত্যু

জ্বালানি তেলের তীব্র সংকটে রীতিমতো হাহাকার চলছে অর্থনৈতিকভাবে বিধ্বস্ত পর্যটননির্ভর দেশ শ্রীলংকায়। দীর্ঘ সময় ধরে লাইনে দাঁড়িয়ে থেকেও মিলছে না জ্বালানি তেল। লাইনে দাঁড়িয়ে দীর্ঘ সময় ধরে অপেক্ষা করতে করতে দেশটিতে অন্তত ১০ জনের করুণ মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে।

কলম্বো গেজেটে প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, শুক্রবার, ২২ জুলাই শ্রীলংকার আলাদা দুটি জায়গায় দুজন বৃদ্ধের মৃত্যু হয়েছে জ্বালানি তেলের জন্য লাইনে দাঁড়িয়ে থাকা অবস্থায়। শুক্রবার কিনিয়াতে ৫৯ বছর বয়সী এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়। সেখানে একটি ফিলিং স্টেশনে ওই ব্যক্তি দুই রাত ধরে মোটরসাইকেলে তেল ভরার জন্য লাইনে দাঁড়িয়ে ছিলেন। মৃত্যুবরণকারী আরেক ব্যক্তির বয়স ৭০ বছর। তিনি পেলাওয়াতে অবস্থিত একটি ফিলিং স্টেশনে জ্বালানি তেলের জন্য অপেক্ষারত লোকদের লাইনে দাঁড়িয়ে ছিলেন। অবশ্য ঠিক কীভাবে ওই দুজনের মৃত্যু হয়েছে তা নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

এই দুজনের মৃত্যুর ঘটনার আগেও শ্রীলংকার একাধিক গণমাধ্যমে প্রকাশিত খবরে বলা হয়, জ্বালানি তেল নেওয়ার দীর্ঘ লাইনে অপেক্ষা করতে করতে অন্তত আট জনের মৃত্যু হয়েছে। মৃত্যুর সেই মিছিলে নতুন দুজনের নাম যুক্ত হওয়ায় মোট মৃত্যুর সংখ্যা গিয়ে ঠেকেছে অন্তত ১০ জনে।

উল্লেখ্য, রিজার্ভ সঙ্কটের কারণে খাদ্য, জ্বালানি, ওষুধসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য আমদানি করতে পারছে না শ্রীলংকা। এ কারণে দেশটিতে এসব পণ্যের তীব্র সঙ্কট দেখা দিয়েছে। অর্থনৈতিক সঙ্কটের পাশাপাশি দেশটির রাজনৈতিক অঙ্গনেও তীব্র অস্থিরতা বিরাজ করছে। 

দেশটিতে স্মরণকালের ভয়াবহতম অর্থনৈতিক সংকটের জেরে জটিল রাজনৈতিক পরিস্থিতির মধ্যে পড়ে গেছে শ্রীলঙ্কা। গত কয়েক মাস ধরে চলছে বিক্ষোভ। অবশেষে প্রেসিডেন্ট গোতাবায়া রাজাপাকসের ক্ষমতাচ্যুতির মধ্য দিয়ে দেশটির রাজনৈতিক পরিস্থিতি কিছুটা শান্ত হয়েছে। নতুন প্রধানমন্ত্রী ও প্রেসিডেন্ট পেয়েছে শ্রীলঙ্কার জনগণ। তারপরও এখনো শঙ্কা কাটেনি দেশটির সাধারণ মানুষের।