শিবপুরে রিকশা চালকের লাশ উদ্ধার

250

ইলিয়াছ হায়দার , শিবপুরে একটি ধানক্ষেত থেকে এক কিশোর রিকশাচালকের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। গতকাল বেলা ১১টার দিকে উপজেলার পুটিয়া ইউনিয়নের কামারগাঁও এলাকা থেকে লাশ উদ্ধার করা হয়।

নিহতের নাম মিলন মিয়া (১৩)। সে নীলফামারীর ডিমলা উপজেলার নাওতারা এলাকার মোরশিদুল ইসলামের ছেলে ও স্থানীয় একটি বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী ছিল। নীলফামারী এলাকার আরও কয়েকজন পরিচিত ব্যক্তির সঙ্গে নরসিংদী শহরের শাপলা চত্বর এলাকার একটি মেসে ভাড়া থেকে রিকশা চালাত মিলন। কয়েকজন রিকশাচালক জানান, দুবছর ধরে আমাদের সঙ্গে থেকে নরসিংদী শহরে রিকশা চালাত মিলন।

অভাবে থাকলে কিছুদিন নরসিংদীতে এসে রিকশা চালাত, আবার কিছু টাকা জমা হলে বাড়িতে গিয়ে পড়ালেখা করত সে। গত শনিবার রাত ৮টার দিকে মেসের ভেতরে আমরা একসঙ্গে রাতের খাবার খেয়েছি। এর পরই সে তার মোটরচালিত রিকশা নিয়ে উপার্জনের উদ্দেশ্যে বেরিয়ে যায়। রাতে আর বাসায় ফেরেনি। গতকাল সকালে ডান হাতের রগকাটা অবস্থায় তার লাশ উদ্ধারের খবর পাওয়া যায়।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, আজ সকাল ৯টার দিকে স্থানীয় কয়েকজন ব্যক্তি ওই পথ ধরে চলাচলের সময় ধানক্ষেতে অজ্ঞাত কিশোরের লাশ পড়ে থাকতে দেখেন। খবর পেয়ে বেলা ১১টার দিকে শিবপুর থানার উপপরিদর্শক রাসেল কবির ঘটনাস্থলে গিয়ে তার লাশ উদ্ধার করেন। পরে নিহত কিশোরের পরনের টিশার্টে থাকা নীলফামারীর একটি ক্লাবের নাম্বারে কল দেওয়া হয়। তাদের কাছ থেকে ঘটনা জানতে পেরে কিশোরের পরিবারের সদস্যরা যোগাযোগ করলে তার পরিচয় নিশ্চিত হয় পুলিশ। পরে তার সহকর্মী রিকশাচালকরা নরসিংদী সদর হাসপাতালের মর্গে এসে নিহত কিশোরের লাশ শনাক্ত করেন।

যে গ্যারেজে মিলন রিকশা রাখত, সেটির মালিক আবু জাহিদ জানান, হত্যার পর থেকে মিলনের রিকশাটি আর পাওয়া যাচ্ছে না। আমাদের ধারণা, মোটরচালিত রিকশাটি ছিনতাই করতে মিলনকে হত্যা করা হয়েছে।

শিবপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. সালাউদ্দিন মিয়া জানান, মিলনের লাশ নরসিংদী সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। স্বজনদের খবর দেওয়া হয়েছে। তারা এলে পরবর্তী আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।