শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ডিজে পার্টিসহ সব রকম অপসংস্কৃতি চর্চা বন্ধের নির্দেশ (‌ভি‌ডিও)

130

আগামী এক মাসের মধ্যে সারাদেশের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগু‌লোতে র‍্যাগ ডের নামে ডিজে পার্টি, উদ্দাম নৃত্য, বুলিং, অশ্লীলতা, নগ্নতাসহ সব ধর‌নের অপসংস্কৃতি বন্ধ করতে নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট।

রোববার, ১৭ এ‌প্রিল এ সংক্রান্ত এক রিটের শুনানি নিয়ে বিচারপতি মো. মজিবুর রহমান মিয়া ও বিচারপতি আহমেদ সোহেলের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এই আদেশ দেন।

আদালতে রিটের পক্ষে শুনানিতে অংশ নেন আইনজীবী মোহাম্মদ কামরুল হাসান।

এর আগে, দেশের বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে র‌্যাগ ডের নামে ডিজে পার্টি, বুলিং, অশ্লীলতা ও নগ্নতা বন্ধের নির্দেশনা চেয়ে হাইকোর্টে রিট দায়ের করা হয়।
গত ৭ এপ্রিল হাইকোর্টে রিটটি করেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী মোহাম্মদ কামরুল হাসান।

রিট আবেদনে র‌্যাগ ডের নামে অশ্লীলতা বন্ধে নির্দেশনা চাওয়া হয়। পাশাপাশি দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ডিজে পার্টি, বুলিং অপসংস্কৃতি ও অশ্লীলতা রোধে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে কেন নির্দেশ দেওয়া হবে না তা জানতে রুল জারির আরজি জানানো হয়।

রিটে বিবাদী করা হয় শিক্ষা মন্ত্রণালয় সচিব, সংস্কৃতি মন্ত্রণালয় সচিব, তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয় সচিব, বিশ্ববিদ্যালয়ের মঞ্জুরি কমিশনের চেয়ারম্যান, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের মহাপরিচালক, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য, জাহাঙ্গীনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য, খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য, বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ও পুলিশের আইজিকে।

রিট আবেদনে বলা হয়, সম্প্রতি র‌্যাগ ডের নামে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে এক ধরনের কুরুচিপূর্ণ, অশ্লীল ও ডিজে পার্টির স্থিরচিত্র ও ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ছে।

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ছাত্র-ছাত্রীদের নৈতিক জীবনমান ও সুকুমার বৃত্তি সৃজনের কারিগর হওয়ার কথা। অথচ আজ শিক্ষা প্রশাসকদের পৃষ্ঠপোষকতায় এবং তাদের উপস্থিতিতে চরম নৈতিক অবক্ষয়মূলক কার্যকলাপের মাধ্যমে কোমলমতি ছাত্র-ছাত্রীরা নিজের অজান্তে নৈতিক অধঃপতনে নিমজ্জিত হচ্ছে।

দেশের মোট জনসংখ্যার ৭০ ভাগ শিশু-কিশোর ও তরুণ। তারা দেশের ভবিষ্যৎ। আমাদের আগামী প্রজন্মকে এ ধরনের অপসংস্কৃতির হাত থেকে রক্ষার জন্য র‌্যাগ ডের নামে অশ্লীলতা, ডিজে পার্টি ও নৈতিক মূল্যবোধের অবক্ষয়মূলক এসব কার্যক্রম সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে বন্ধ করা প্রয়োজন।