লঞ্চের আগাম টিকিট কাল থেকে

189

আসন্ন ঈদুল ফিতর উপলক্ষ্যে ঘরমুখো মানুষের জন্য ঢাকা-বরিশাল নৌ রুটে চলাচলকারী বেসরকারি লঞ্চের অগ্রিম টিকিট বিক্রি শুরু হবে সোমবার (১৮ এপ্রিল)।

শনিবার (১৬ এপ্রিল) রাতে যাত্রীবাহী লঞ্চ মালিক সমিতি সূত্রে এই তথ্য জানা গেছে।

ঢাকা থেকে বরিশাল এবং বরিশাল থেকে ঢাকায় ফেরার উভয় টিকিট ওই দিন থেকে বিক্রি করা হবে। আগাম টিকিটের জন্য দুই-একটি লঞ্চ ছাড়া সব কোম্পানির কাউন্টারেই ইতোমধ্যে আবেদন জমা পড়েছে বলেও সমিতি সূত্রে জানা গেছে।

এছাড়া প্রতিবারের মতো এবারেও কীর্তনখোলা লঞ্চ কোম্পানি আগে আসলে আগে পাবেন ভিত্তিতে ঈদের অগ্রিম টিকিট বিক্রি শুরু করে দিয়েছে।

তবে ঈদ উপলক্ষে লঞ্চের স্পেশাল সার্ভিস (ডাবল ট্রিপ) কবে থেকে শুরু হবে, তা এখনো ঠিক করেনি বিআইডব্লিইটিএ। দীর্ঘ ছুটি ও লঞ্চের সংখ্যা বৃদ্ধির কারণে অধিকাংশ লঞ্চ মালিক স্পেশাল সার্ভিস (ডাবল ট্রিপ) দিতে আগ্রহী হচ্ছেন না।

ঈদের আগে ও পরে দীর্ঘ ছুটির কারণে আগামী ২৮ থেকে ৩০ তারিখের পরে লঞ্চে যাত্রীদের চাপ কম থাকবে বলে মনে করা হচ্ছে। এছাড়া ঢাকা-বরিশাল নৌরুটে লঞ্চের সংখ্যা, আকার ও ধারণ ক্ষমতা বৃদ্ধি পেয়েছে। কেবিনের চাহিদা সব সময়ই থাকে। দেখতে হবে ডেকের যাত্রীদের অবস্থা। ডেকের যাত্রীদের চাপ না থাকার সম্ভাবনা বেশি। তাই এবার ডাবল ট্রিপ চালাতে চাইছে না মালিকরা।

জানা গেছে, ঢাকা-বরিশাল নৌ রুটে চলাচলকারী লঞ্চগুলোতে চাহিদার চেয়ে কেবিনের সংখ্যা কম। ঈদে কেবিনের চাহিদা থাকে কয়েক গুণ। ফলে আবেদনকারী সবাইকে কেবিন দেওয়া সম্ভব হয় না। আবেদন যাচাই-বাছাই শেষে লটারির মাধ্যমে যাত্রীদের মধ্যে টিকিট বিতরণ করা হবে। আগামী সোমবার লঞ্চগুলোর ঢাকা ও বরিশালের কাউন্টার থেকে কেবিনের টিকিট সংগ্রহ করতে হবে।

বাংলাদেশ লঞ্চ মালিক সমিতির কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি সাইদুর রহমান রিন্টু বলেন, স্পেশাল ট্রিপ কবে থেকে শুরু হবে এ সিদ্ধান্ত এখন পযর্ন্ত নেওয়া হয়নি। আগামী সপ্তাহে নৌ-পরিবহন মন্ত্রণালয়, বিআইডব্লিউটিএ এবং মালিক সমিতির যৌথ সভা হওার কথা রয়েছে। সেখানে ঈদে লঞ্চযাত্রা ও যাত্রীদের জন্য করণীয় বিষয়ে সিদ্ধান্ত হবে।