রাজবাড়ীতে চুরি করা ফোনের গোপন ছবি, ভিডিও ফাঁসের হুমকি চোরের

119
রাজবাড়ীতে চুরি করা ফোনের গোপন ছবি, ভিডিও ফাঁসের হুমকি চোরের
রাজবাড়ীতে চুরি করা ফোনের গোপন ছবি, ভিডিও ফাঁসের হুমকি চোরের

রাজবাড়ীতে কুয়েত প্রবাসী এক ব্যক্তির স্ত্রীর গোপন ছবি ও ভিডিও অন্তর্জালে ছড়িয়ে দেওয়ার হুমকি দিয়েছে এক মোবাইল ফোন চোর। শুধু তাই নয়, তিন লাখ টাকা চাঁদাও দাবি করেছে ওই চোর।

এই ঘটনায় আদালতে মামলা দায়ের করেছেন ভিকটিম। মামলার প্রধান আসামি তারই প্রতিবেশী লালচাঁদ বেপারীর ছেলে মাহবুব বেপারী। এছাড়া অজ্ঞাতনামা আরও ২-৩ জনকে মামলার আসামি করা হয়েছে।

মামলার অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, ভিকটিমের স্বামী কুয়েত প্রবাসী। আর ভিকটিম থাকেন শ্বশুর বাড়িতে। গত বছরের ফেব্রুয়ারিতে বাড়ির সবাই রাতের খাবার খেয়ে শুয়ে পড়েন। রাত সাড়ে ১০টার দিকে ঘরের জানালা দিয়ে প্রতিবেশী মাহবুব বেপারী ভিকটিমের স্যামসাং ও হুয়াওয়েই কোম্পানির দুটি স্মার্টফোন চুরি করে নিয়ে যায়। মাহবুব দৌড়ে পালানোর সময় ভিকটিম মাহবুবকে স্পষ্ট দেখতে পান। চুরি হওয়া মোবাইল দুটিতে ভিকটিম ও তার স্বামীর ব্যক্তিগত ছবি ও ভিডিও ছিল।

এ ঘটনায় ভিকটিম থানায় অভিযোগ দিতে গেলে থানা কর্তৃপক্ষ আদালতে মামলা দায়েরের পরামর্শ দেয়।

পরবর্তী সময়ে ঘটনাটি স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিদের জানানো হলে সালিশ বসে। শালিসে মাহবুব মোবাইল চুরির কথা স্বীকারও করে। সে জানায়, মোবাইল ফোন ফিরিয়ে দেবে। কিন্তু মোবাইল ফোন ফেরৎ না দিয়ে নানা টাল-বাহানা শুরু করে।

চলতি বছরের ২৭ জানুয়ারি মাহবুব তার ব্যক্তিগত মোবাইল নম্বর থেকে ভিকটিমের মোবাইল নম্বরে একটি এসএসএস পাঠায়। সেখানে লেখা ছিল, আপনার একটা ভিডিও আমার কাছে আছে।
মাহবুব ভিকটিমের ভিডিও ও ছবি ইন্টারনেটে ছেড়ে দেবে বলেও হুমকি দেয়।

মোবাইলে এসএমএস পাঠানোর ঘটনায় চলতি বছরের ৩০ জানুয়ারি রাজবাড়ী সদর থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন ভিকটিম।
গত ২৯ ফেব্রুয়ারি দুপুরে মাহবুব অজ্ঞাতপরিচয় ২-৩ জন লোক নিয়ে ভিকটিমের বাড়িতে গিয়ে মোবাইলের এসএমএস পাঠানোর ঘটনা নিয়ে বাড়াবাড়ি করতে নিষেধ করে। এছাড়া মোবাইলটিতে থাকা ছবি ও ভিডিও ডিলিট করাতে চাইলে তিন লাখ টাকা দিতে হবে বলে জানায় মাহবুব। শুধু তাই নয়, এসময় মাহবুব তার কোমর থেকে ধারালো চাকু বের করে ভিকটিমকে হত্যার হুমকি দিয়ে ঘটনাস্থল ত্যাগ করে। সবশেষ গত ৩১ মার্চ বিকেল ৪টার দিকে ভিকটিমের কাছে টাকা দাবি করে মাহবুব।

এই ঘটনায় সম্প্রতি রাজবাড়ী আদালতে মাহবুবের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন ভিকটিম। আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে রাজবাড়ী সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে ঘটনার তদন্ত করে চলতি বছরের ২২ আগস্টের মধ্যে আদালতে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেন।