রাজনৈতিক অপশক্তি উন্নতি বাধাগ্রস্থ করতে চায় : বাহাউদ্দিন নাছিম

87
রাজনৈতিক অপশক্তি উন্নতি বাধাগ্রস্থ করতে চায় : বাহাউদ্দিন নাছিম
রাজনৈতিক অপশক্তি উন্নতি বাধাগ্রস্থ করতে চায় : বাহাউদ্দিন নাছিম

ফরহাদ খান, নড়াইল থেকে : নড়াইলের লোহাগড়া উপজেলার দিঘলিয়া সাহাপাড়ার কলেজছাত্র আকাশ সাহা ফেসবুকে রাসূল (সাঃ) কে নিয়ে কটুক্তি করায় সহিংসতার ঘটনায় হিন্দু সম্প্রদায়ের ক্ষতিগ্রস্ত বাড়িঘর, দোকান ও মন্দির পরিদর্শন করেছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম এবং সাংগঠনিক সম্পাদক বি এম মোজাম্মেল হক।

বুধবার (২০ জুলাই) দুপুরে তারা ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শন শেষে মন্দির চত্বরে এলাকাবাসীর সঙ্গে মতবিনিময় করেন। এছাড়া ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারের মাঝে ১০ হাজার টাকা করে অনুদান দেন।

এসময় উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী, সংসদ সদস্য কবিরুল হক মুক্তি ও মাশরাফি বিন মর্তুজা, স্বেচ্ছাসেবক লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি গাজী মেজবাউল হোসেন সাচ্চু, সাধারণ সম্পাদক আফজালুর রহমান, জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হাবিবুর রহমান, পুলিশ সুপার প্রবীর কুমার রায়, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সুবাস চন্দ্র বোস, সাধারণ সম্পাদক ও সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নিজাম উদ্দিন খানসহ নেতৃবৃন্দ।

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম বলেন, এ অঞ্চলে সাম্প্রদায়িক-সম্পৃতীর উজ্জ্বল ইতিহাস রয়েছে। যারা এ ধরনের ভাংচুর ও জ্বালাও-পোড়াও করেছে তারা পরিকল্পিতভাবে করেছে। এটার পেছনে রাজনৈতিক অপশক্তি জড়িত। সাম্প্রদায়িক বিষবাষ্প ছড়িয়ে বাংলাদেশের সম্প্রীতি, উন্নতি ও অগ্রযাত্রাকে বাধাগ্রস্থ করতে তারা এসব অপকর্ম করেছে। একটি তুচ্ছ ঘটনা সামনে নিয়ে এসে দেশের শান্তি-শৃঙ্খলা নষ্ট করেছে। তবে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী এসব অপকর্ম প্রতিহত করেছে। এসব মোকাবেলা করে আমরা সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি অক্ষুন্ন রাখতে চাই। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সহযোগিতায় এসব অপকর্ম আমরা মোকাবেলা করতে চাই।

মাশরাফি বিন মর্তুজা এমপি বলেন, বারবারই বলে আসছি, নড়াইলে আগে কখনো এ ধরনের ঘটনা ঘটেনি। আমরা প্রশাসনের কাছে দাবি রেখেছি, সঠিক তদন্ত করে বিচার করতে হবে যাতে অপরাধীরা আর কখনো এ ধরনের ঘটনা না ঘটায়।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, গত ১৫ জুলাই লোহাগড়া উপজেলার দিঘলিয়া সাহাপাড়ার কলেজছাত্র আকাশ সাহা তার ফেসবুকে রাসূল (সাঃ) কে নিয়ে কটুক্তি করে। বিষয়টি ওইদিন জুম্মার নামাজের পর বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষের নজরে আসে। এরপর বিক্ষুদ্ধ লোকজন আকাশ সাহার গ্রেফতার ও বিচার দাবিতে তাদের বাড়ির সামনে বিক্ষোভ করেন। ওইদিন বিকেল থেকে উত্তেজনা আরো বাড়তে থাকে।

বিক্ষুদ্ধ লোকজন একপর্যায়ে সাহাপাড়ার পাঁচটি বাড়ি ও দিঘলিয়া বাজারের ছয়টি দোকান ভাংচুর করেন। এর মধ্যে গোবিন্দা সাহার বাড়িতে আগুন ধরিয়ে দেয়া হয়। আগুনে টিনের দুটি ঘর পুড়ে গেছে।

এছাড়া সাহাপাড়ার মন্দিরের চেয়ার ও সাউন্ডবক্স এবং আখড়াবাড়ি মন্দিরের টিনের চালা ভাংচুর ও মহাশ্মশান কালিবাড়ি মন্দিরের ক্ষতিসাধন করেন বিক্ষুদ্ধরা। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে ঘটনাস্থলে বিপুল সংখ্যক পুলিশ ও র‌্যাব মোতায়েন করা হয়। এছাড়া পুলিশ কয়েক রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছোঁড়ে।