রংপুরে  বীর মুক্তিযোদ্ধাদের আরসিসিআই’র সম্মাননা প্রদান

রংপুরে  বীর মুক্তিযোদ্ধাদের আরসিসিআই’র সম্মাননা প্রদান
রংপুরে  বীর মুক্তিযোদ্ধাদের আরসিসিআই’র সম্মাননা প্রদান

নুর হাসান চান, রংপুর : মহান মুক্তিযুদ্ধে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখার জন্য বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মাননা প্রদান করেছে রংপুর চেম্বার অব কমার্স এ্যান্ড ইন্ডাষ্ট্রি’র (আরসিসিআই)। মঙ্গলবার (২২ মার্চ) দুপুরে চেম্বার ভবনের আরসিসিআই অডিটরিয়ামে এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

সম্মাননা প্রাপ্তরা হলেন; রংপুর নগরীর বীরঙ্গনা মনছুরা বেগম, পীরগাছা উপজেলার বীর মুক্তিযোদ্ধা নাজিম উদ্দিন, কাউনিয়া উপজেলার বীর মুক্তিযোদ্ধা আজিজুল ইসলাম মোল্লা। তাঁদের তিনজনকে আরসিসিআই’র পক্ষ থেকে উত্তরীয় পরিধান, ক্রেষ্ট ও উপঢৌকন প্রদানের মাধ্যমে সম্মাননা জানানো হয়। এসময় এই তিন বীর মুক্তিযোদ্ধার ওপর নির্মিত প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শন করা হয়।

অনুষ্ঠানের আলোচনা পর্বে প্রধান অতিথির বক্তব্যে জেলা প্রশাসক আসিব আহসান বলেন, বাংলাদেশকে ভালবাসতে হলে আগে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা এবং বঙ্গবন্ধুকে হৃদয়ে লালন করতে হবে।কারণ বঙ্গবন্ধু মানেই বাংলাদেশ। বঙ্গবন্ধু মানেই দেশপ্রেম। বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে। বাংলাদেশ হবে দক্ষিণ এশিয়ার উন্নত, শান্তিপূর্ণ ও সমৃদ্ধ একটি দেশ। এসময় তিনি তরুণ প্রজন্মকে মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে লালন ও ধারন করে দেশকে এগিয়ে নেয়ার আহ্বান জানান।

অনুষ্ঠানে আরসিসিআই’র সভাপতি মোস্তফা সোহরাব চৌধুরী টিটুর সভাপতিত্বে সম্মানিত অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ রংপুর জেলা ইউনিটের সাবেক কমান্ডার ও এফবিসিসিআই’র পরিচালক বীর মুক্তিযোদ্ধা মোছাদ্দেক হোসেন বাবলু।

বক্তারা বলেন, বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য নেতৃত্ব এবং ৭ই মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণে উদ্বুদ্ধ হয়ে বাংলার দামাল ছেলেরা মহান মুক্তিযুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েছিল। তারা দেশকে ভালোবাসে প্রাণ দিতে রণাঙ্গন চষে বেড়িয়েছে। পাকিস্তানী শাসন, শোষণ এবং শোষকদের বিরুদ্ধে অস্ত্র হাতে লড়াই করে আমাদেরকে একটি স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশ উপহার দিয়েছেন। এখন আমাদেরকে অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ বিনির্মাণে মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে শাণিত ও সমৃদ্ধ করতে হবে।

এছাড়াও বক্তব্য রাখেন; আরসিসিআিই’র পরিচালক মোতাহার হোসেন মন্ডল মওলা, কারমাইকেল কলেজের সাবেক ভিপি আলাউদ্দিন মিয়া,  ঠিকাদার   মনজুর আহমেদ আজাদ, মাহিগঞ্জ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী মুক্তা খাতুন, পুলিশ লাইন্স স্কুল ও কলেজের শিক্ষার্থী নাফিসা ফারজানা।