যৌতুকের দাবিতে নির্যাতনের শিকার, একসঙ্গে আত্মহত্যা করলেন তিন বোন

88

ভারতের রাজস্থান রাজ্যে যৌতুকের দাবিতে নির্যাতনের শিকার হয়ে ২ সন্তানসহ ৩ জন গৃহবধূ আত্মহত্যা করেছেন। তাদের একই পরিবারে বিয়ে হয় ৩ বোনের ।একসঙ্গেই সংসার করছিলেন তারা। দুই সন্তানসহ তারা আত্মহত্যা করেছেন।

গত শনিবার এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানিয়েছে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি। তিন ভাইয়ের সঙ্গে বিয়ে হয়েছিল ওই তিন বোনের। তিন বোনের মধ্যে দুই জন ছিলেন অন্তঃসত্ত্বা। দুই বোনের একজনের ২৭ দিন বয়সী আরেকজনের চার বছর বয়সী সন্তানও ছিল।

খবরে বলা হয়েছে, আত্মহত্যার সময় তিন বোন তাদের সন্তানদের নিয়েই কুয়োয় ঝাঁপ দেন। তাদের সঙ্গে ছিল ৪ বছরের এক শিশু এবং ২৭ দিনের এক সদ্যোজাত। মৃত্যুর সময় দুজন আবার অন্তঃসত্ত্বা ছিলেন। মৃতদের নাম কালু মিনা (২৫), মমতা (২৩), কমলেশ (২০)। সকলে মিলে তারা একটি কুয়োয় ঝাঁপ দিয়েছেন। সেখান থেকেই উদ্ধার হয়েছে তাদের মরদেহ। 

মৃতদের বাপের বাড়ির অভিযোগ, ২৫ মে থেকে ওই তিন বোনের আর কোনো খোঁজ পাওয়া যাচ্ছিল না। স্থানীয় থানায় এফআইআরও দায়ের করা হয়। কিন্তু তেমন কোনো সাহায্য পাওয়া যায়নি।

তিন বোন মৃত্যুর আগে কোনো সুইসাইড নোট রেখে যাননি। তবে ছোট বোন কমলেশের হোয়াটসঅ্যাপ স্টেটাসের দেওয়া ছিল, ‘আমরা এখন যাচ্ছি। সবাই ভাল থাক। আমাদের মৃত্যুর কারণ আমাদের শ্বশুরবাড়ির লোকজন। রোজ একটু একটু করে মরার চেয়ে একবার একেবারে মরে যাওয়া অনেক ভাল। পরের জন্মে আমরা তিন জন একসঙ্গে জন্মাব। আমরা মরতে চাইনি। শ্বশুরবাড়ির জন্যেই মরতে হচ্ছে। আমাদের এই মৃত্যুর জন্য আমাদের মা-বাবাকে কেউ যেন দায়ী না করে।’

তিন বোনের দেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। তাদের সন্তানদেরও পাওয়া গেছে নিথর অবস্থায়। তাদের স্বামী এবং শ্বশুরবাড়ির লোকজনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের হয়েছে।