মৌলভীবাজারের নবনির্মীত দৃষ্টিনন্দন পৌর ঈদগাহে মুসল্লির ঢল

93
মৌলভীবাজারের নবনির্মীত দৃষ্টিনন্দন পৌর ঈদগাহে মুসল্লির ঢল
মৌলভীবাজারের নবনির্মীত দৃষ্টিনন্দন পৌর ঈদগাহে মুসল্লির ঢল

দীর্ঘ এক মাস সিয়াম সাধনার পর যথাযোগ্য মর্যাদায় বিপুল উৎসাহ উদ্দীপনায় মৌলভীবাজারে উদযাপিত হচ্ছে পবিত্র ঈদুল ফিতর। সকাল সাড়ে ৬টায় শহরের বিখ্যাত ইসলামী স্থাপত্যশৈলী শৈল্পিক কারুকার্যের দৃষ্টিনন্দন ও বিশাল পৌর ঈদগাহ ময়দান হযরত সৈয়দ শাহ্ মোস্তফা (রহঃ) পৌর ঈদগাহে জেলার সর্ববৃহৎ ঈদের নামাজ অনুষ্ঠিত হয়।

মহামারি করোনার ভয় কাটিয়ে দুই বছর পর বৈরী আবহাওয়া উপেক্ষা করে ভোরের আলো ফুটার পর থেকেই ঈদের নামাজ আদায়ের লক্ষে শহরের নব-সম্প্রসারিত বিশাল পৌর ঈদগাহে ঢল নামে ধর্মপ্রাণ মুসল্লির। জামাতের আগেই ঈদগাহ মাঠ নিমিষেই জনসমুদ্রে পরিণত হয়।

পৌরসভার তত্বাবধানে ঈদের দিন (৩ মে) প্রথম ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হয় সকাল সাড়ে ৬টায়। এরপর সকাল সাড়ে ৭টা এবং সাড়ে ৮টায় আরও দুটি জামাত শান্তিপূর্ণভাবে অনুষ্ঠিত হয়। মৌলভীবাজার ও আশপাশের উপজেলার হাজার হাজার মুসল্লি এখানে ঈদের নামাজ আদায় করেন।

এতে ইমামতি করেন দেওয়ানি জামে মসজিদের খতিব ও ইমাম মাওলানা সৈয়দ মো: মুহিত উদ্দিন। আর দ্বিতীয় ও তৃতীয় জামাতে ইমামের দায়িত্ব পালন করেন যথাক্রমে পশ্চিমবাজার জামে মসজিদের খতিব মাওলানা মো: মুহিবুর রহমান এবং সুলতানপুর জামে মসজিদের ইমাম মুফতি শামসুজ্জোহা।

প্রথম জামাতে মৌলভীবাজার তিন আসনের সংসদ সদস্য নেছার আহমদ, জেলা প্রশাসক মীর নাহিদ হাসান, জেলা পরিষদের প্রশাসক মিজবাহুর রহমান, পৌরসভার

মেয়র মো: ফজলুর রহমান, যুবলীগের সাধারন সম্পাদক সৈয়দ রেজাউর রহমান সুমন, সরকারি কর্মকর্তা, রাজনীতিবিদ, জনপ্রতিনিধিসহ সর্বস্থরের হাজার হাজার মুসল্লি ঈদের নামাজে অংশ নেন। নামাজ শেষে করোনাভাইরাসসহ সব দুর্যোগ থেকে মুক্তি লাভ এবং দেশের সমৃদ্ধি আর শান্তি কামনা করে দোয়া করা হয়।

ঈদের আগের দিন থেকেই ঈদগাহ এলাকাজুড়ে বর্ণিল আলোকসজ্জা আর কঠোর নিরাপত্তা জোরদার করা হয়। নিরাপদে নামাজ আদায়ে ঈদগাহ মাঠ জুড়ে শান্তি শৃংখলা

রক্ষায় পুলিশ ও র‌্যাবের পাশাপাশি সাদা পোষাকে আইন-শৃংখলা বাহিনী দ্বায়িত্ব পালন করে। এছাড়া জেলার জামে মসজিদসহ জেলা-উপজেলার বিভিন্ন মসজিদ ও ঈদগাহ মাঠে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে।