মায়ের হাতেই দুই সন্তান খুন হন  

120

রবিবার টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরে পারিবারিক কলহের জেরে দুই শিশু সন্তানকে বালিশ চাপা দিয়ে শ্বাসরোধ করে হত্যার পর চলন্ত ফ্যানের সাথে কাটা পড়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করেছে মা।

নিকরাইল ইউনিয়নের ১নং পূর্নবাসন এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। নিহতরা হলেন, ওই এলাকার ইউসুফের ছেলে সাজিম (৬) ও সানি (৪ মাস)। নিহত শিশুদের মা সাহিদা বেগম টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে।

রোববার সকাল ১১টা বাজলেও সাহিদা ঘর থেকে বের না হলে ডাকাডাকি করেও তার কোন সারাশব্দ পাওয়া যায়নি। পরে শিশুদের বাবাকে খবর দেয়া হলে তিনি এসে স্থানীয়দের সহযোগিতায় লোহা দিয়ে ঘরের বেড়া খুলে ভেতরে ডুকে শিশুদের মৃত অবস্থায় ও শাহিদাকে রক্তাক্ত অবস্থায় দেখতে পেয়ে উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠায়। তবে নিহতের বাবার দাবি ছিল, শিশুদের হত্যার পর ফ্যানের সাথে ঝুলে আত্মহত্যার চেষ্টা করে মা। তখন ফ্যানের পাখা ভেঙে পড়ে আহত হন তিনি।

প্রথমে পরিবারের সদস্যসহ স্থানীয়রা ধারণা করেছিলেন, ঘরের ভেতর ঘুমিয়ে থাকা অবস্থায় চলন্ত ফ্যানের পাখা তাদের ওপর খসে পড়ে। এতে ওই দুই শিশুর মৃত্যু হয় এবং তাদের মা আহত হন। পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, শনিবার রাতে নিহতের বাবা শিশুসহ তাদের মাকে ঘুমন্ত অবস্থায় রেখে মাছ ধরতে যায়।

ভূঞাপুর থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. ফরিদুল ইসলাম জানান, সাহিদা বেগম নিজেই বালিশ চাপা দিয়ে তার দুই শিশু সন্তানকে হত্যা করার ঘটনা স্বীকার করেছে। বর্তমানে তিনি পুলিশ পাহারায় হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন। তার দুই ছেলেকে হত্যা করে নিজে আত্মহত্যার চেষ্টা করে। কিন্ত সে আত্মহত্যা করতে পারেনি বলে তিনি জানান। তিনি আরও জানান, এ ঘটনায় নিহতের বাবা ইউসুফ বাদি হয়ে গতকাল ভূঞাপুর থানায় মামলা করেছেন।