ভারতের মুম্বাইয়ে বাংলাদেশের জাতীয় শোক দিবস পালন

102

ভারতের মুম্বাইয়ে বাংলাদেশ উপ-হাইকমিশনে ১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবস ২০২২ এবং স্বাধীনতার মহান স্থপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান-এর ৪৭তম শাহাদাত বার্ষিকী যথাযথ মর্যাদা ও ভাবগাম্ভীর্যের সাথে পালন করা হয়। এ উদ্দেশ্যে স্থানীয় একটি পাঁচ তারকা হোটেলে জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পন, বিশেষ আলোচনাসভা, প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শণ এবং দোয়া ও মোনাজাতের আয়োজন করা হয়।

মুম্বাইয়ে নিযুক্ত বাংলাদেশের উপ হাইকমিশনার চিরঞ্জীব সরকার আনুষ্ঠানিকভাবে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত করনের মাধ্যমে দিবসটি উদ্যাপন শুরু করেন। এরপর জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পন করা হয় এবং বঙ্গবন্ধু ও তাঁর পরিবারের সকলের স্মরণে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়।

আলোচনা সভার শুরুতে মহামান্য রাষ্ট্রপতি, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, মাননীয় পররাষ্ট্র মন্ত্রী এবং মাননীয় পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর বাণী পাঠ করা হয়। বাণীপাঠের পর উপস্থিত গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ও প্রবাসী বাংলাদেশীদের অংশগ্রহনে একটি আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। মুম্বাইস্থ বাংলাদেশের উপ হাইকমিশনার তাঁর বক্তব্যে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কীর্তিময় জীবন ও একটি স্বাধীন রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠায় তাঁর অসামান্য কৃতিত্ব তুলে ধরেন। তিনি ১৫ই আগস্টের বর্বর হত্যাকান্ডের প্রতি তীব্র নিন্দা ও ক্ষোভ প্রকাশ করেন।

উপ-হাইকমিশনার তাঁর বক্তব্যে স্বাধীন বাংলাদেশের অভ্যুদয়ে বঙ্গবন্ধুর একক এবং অসাধারন নেতৃত্বের কথা স্মরণ করেন। আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে বিশ^শান্তি ও মানবতার কল্যাণে বঙ্গবন্ধুর অসামান্য ভূমিকার উপর তিনি আলোকপাত করেন। জাতির পিতার দেশপ্রেম ও প্রেরণায় উদ্বুদ্ধ হয়ে স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়তে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে ঐক্যবদ্ধ বাংলাদেশ গড়তে তিনি আহ্বান জানান। অংশগ্রহনকারী সকল বক্তাগণ বঙ্গবন্ধুর প্রতি তাঁদের শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করেন এবং বাংলাদেশের চলমান অগ্রগতির প্রশংসা করেন। অনুষ্ঠানের শেষ পর্বে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জীবনভিত্তিক প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শন করা হয়।

অনুষ্ঠানে উপ-হাইকমিশনের সকল সদস্য, তাঁদের পরিবারবর্গ, স্থানীয় গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিবর্গ, ডিপ্লোম্যাটিক কমিউনিটির সদস্যবৃন্দ, শিক্ষাবিদ ও প্রবাসী বাংলাদেশীরা অংশ নেন।