ব্রেইন ক্যান্সার আক্রান্ত আয়েশার চিকিৎসায় এগিয়ে এলো বিপিজেএ ফেনী 

ব্রেইন ক্যান্সার আক্রান্ত আয়েশার চিকিৎসায় এগিয়ে এলো বিপিজেএ ফেনী 
ব্রেইন ক্যান্সার আক্রান্ত আয়েশার চিকিৎসায় এগিয়ে এলো বিপিজেএ ফেনী 

শেখ আশিকুন্নবী সজীব,ফেনী প্রতিনিধি : দুরারোগ্য ব্রেইন ক্যান্সার আক্রান্ত আয়েশার চিকিৎসায় অর্থ সহায়তা নিয়ে এগিয়ে এসেছে বাংলাদেশ ফটো জার্নালিস্ট এসোসিয়েশন (বিপিজেএ) ফেনী জেলা শাখা।  গতকাল শনিবার (১৯ মার্চ) দুপুরে ফেনী সদর উপজেলার পাঁচগাছিয়া ইউনিয়নের ডুমুরুয়া গ্রামে আয়েশার পিতা মো. ইয়াসিনের হাতে অর্থ সহায়তা তুলে দেন সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

ব্রেইন ক্যান্সার আক্রান্ত আয়েশার চিকিৎসায় এগিয়ে এলো বিপিজেএ ফেনী 

এতে উপস্থিত ছিলেন যমুনা টেলিভিশনের স্টাফ রিপোর্টার আরিফুর রহমান, দৈনিক অজেয় বাংলার নির্বাহী সম্পাদক শাহজালাল ভূঁঞা, চাঁদগাজী স্কুল এন্ড কলেজের প্রভাষক মোর্শেদ হোসেন, বাংলা নিউজ ২৪ ডট কমের স্টাফ রিপোর্টার সোলায়মান হাজারী ডালিম,  ইউনাইটেড ট্রাস্ট ফেনী জেলার সমন্বয়ক ফয়সাল ভূঁঞা। 
এ সময় সংগঠনের সভাপতি এম. এমরান পাটোয়ারী, সাধারণ সম্পাদক মীর হোসেন রাসেল, কোষাধ্যক্ষ ইয়াছির আরাফাত রুবেল, কার্যকরী সদস্য তোফায়েল আহম্মদ নিলয়, আবদুল্লাহ আল-মামুন, সুরঞ্জিত নাগ, সদস্য মোল্লা মো. ইলিয়াছ ও দৈনিক প্রভাত আলোর আইটি ইনচার্জ হারুনুর রশিদ মৃধা প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।
উল্লেখ্য, দুরারোগ্য ব্রেইন ক্যান্সার আক্রান্ত হয়ে একটু একটু করে মৃত্যুর প্রহর গুনছে ফেনী সদর উপজেলার পাঁচগাছিয়া ইউনিয়নের ডুমুরিয়া গ্রামের মো. ইয়াসিনের মেয়ে আয়েশা।

দুই বছর আগে হঠাৎ বমি করে রাস্তায় পড়ে যায় আয়েশা। সেখান থেকে নেয়া হয় ২৫০ শয্যার ফেনী জেনারেল হাসপাতালে ৭ দিন চিকিৎসার পরও কোনও উন্নতি না হওয়ায় স্থানান্তর করা হয় চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। সেখানে ধরা পড়ে মাথার পেছনে একটি টিউমার। যথারীতি সে টিউমারের অপারেশন হয়। কিন্তু বিপত্তি দেখা দেয় কিছুদিন পরই। এমআরই পরীক্ষার পর জানা যায় তার ব্রেইন ক্যান্সার। ১৬টি ক্যামো থেরাপি দেয়া গেলে আয়েশা সুস্থ্য হয়ে ফেরার সম্ভাবনা আছে।

মেয়ের চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে পড়ে থাকায় তার ছোট চাকুরীটিও চলে যায়। শেষে উপায়ান্তর না পেয়ে মানুষের সহায়তা ও ভিটের একটি অংশ বিক্রি করে মেয়ের চিকিৎসা চালিয়ে গেছেন। ১০টি ক্যামো দিয়েছেন আর ৬টি ক্যামো দিতে পারছেন না। ক্যামো না দেয়ায় মেয়ে দিন দিন অসুস্থ হয়ে পড়ছে। ক্যান্সার শরীরে বিভিন্ন অংশে ছড়িয়ে পড়ছে, আগে একটু হাঁটা চলা করতে পারলেও মেয়েটা এখন বিছানা থেকে উঠতেই পারে না।