বিস্ফোরণে ৩৭ লাশ উদ্ধার

116
বিস্ফোরণে ৩৭ লাশ উদ্ধার
বিস্ফোরণে ৩৭ লাশ উদ্ধার

চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডের সোনাইছড়ি ইউনিয়নে বিএম কনটেইনার ডিপোতে ভয়াবহ বিস্ফোরণের ঘটনাতে ৩৭ জনের লাশ উদ্ধার । নিহতদের মধ্যে ৫ জন ফায়ার সার্ভিস কর্মী ছিল। শনিবার রাতের এই দুর্ঘটনায় চার শতাধিক দগ্ধ ও আহত হয়েছে।

রোববার সকালে রেড ক্রিসেন্টের পক্ষ থেকে নিহত ৩৭ জনের তালিকা চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের নোটিশ বোর্ডে প্রকাশ করাছে ।  

এদিকে আহতদের মধ্যে শ্রমিক, পুলিশ সদস্য ও ফায়ার সার্ভিসকর্মী রয়েছে। এদের মধ্যে বেশিরভাগকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। অনেককে বেসরকারি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। 

সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, ওই ডিপোতে ৫০ হাজারের বেশি কনটেইনার আছে। কেমিক্যাল কনটেইনার থেকে আগুনের সূত্রপাত বলে ধারণা করা যাচ্ছে। আগুন লাগার পর কনটেইনারগুলো একের পর এক বিস্ফোরিত হয় । বিস্ফোরণে ঘটনাস্থল থেকে তিন-চার কিলোমিটার এলাকা কেঁপে ওঠেছে। আশপাশের বাড়ি-ঘরের জানালার কাচ ভেঙে পড়ে যায়।

অগ্নিদগ্ধদের জরুরি চিকিৎসার জন্য চট্টগ্রামের চিকিৎসকের ছুটি বাতিল করা হয়েছে। বেসরকারি হাসপাতালগুলোকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে সীতাকুণ্ডে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় আহতদের চিকিৎসা দেওয়ার জন্য।  বেসরকারি হাসপাতালসহ সব হাসপাতাল প্রস্তুত রয়েছে আহতদের চিকিৎসা দেবার জন্য। 

চমেক হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোহাম্মদ শামীম আহসান বলেছেন, ছুটিতে থাকা সব চিকিৎসক-নার্সকে জরুরি ভিত্তিতে হাসপাতালে য়ে আসা হয়েছে। এতসংখ্যক রোগীকে চিকিৎসা দেওয়ার মতো পর্যাপ্ত ওষুধ মজুতও নেই। এ জন্য জরুরি ভিত্তিতে ওষুধ, স্যালাইন, পেইন কিলার নিয়ে সহযোগিতার হাত বাড়ানোর অনুরোধ করছি দেশবাশিকে। সেই সঙ্গে আশপাশের উপজেলা ও স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে চিকিৎসক নিয়ে আসা হয়েছে। তবু চিকিৎসা দিয়ে পেরে উঠতে পারছি না আমরা।