প্রেমের টানে মার্কিন যুবক গাজীপুরে

184
প্রেমের টানে মার্কিন যুবক গাজীপুরে
প্রেমের টানে মার্কিন যুবক গাজীপুরে

প্রেমের টানে গাজীপুরে এসেছে মার্কিন যুবক রাইয়ান কফম্যান। গত ২৯ মে তিনি বাংলাদেশে আসে। এরপর পরিবারের সম্মতিতে গাজীপুরের মেয়ে সাইদা ইসলামের (২৬) সঙ্গে বিয়ে বন্ধনে আবদ্ধ হয়।

রাইয়ান যুক্তরাষ্ট্রের মিজৌরি অঙ্গরাজ্যের ক্যানসাস সিটির নাগরিক। তিনি তার এলাকার একটি প্লাস্টিক পণ্য তৈরির কারখানায় অপারেটর পদে কাজ করে। লেখাপড়া করেছে মাধ্যমিক স্কুল পর্যন্ত। তার মা-বাবা ছাড়াও এক বড় ভাই আছেন। তারা যুক্তরাষ্ট্রে প্রত্যেকেই আলাদা বাসায় বসবাস করে।

কনে সাইদা ইসলাম গাজীপুর মহানগরের বাসন থানার ভোগড়া মধ্যপাড়া এলাকার মোশারফ হোসেন মাস্টারের নাতনি ও মৃত সিকন্দার আলীর মেয়ে।

কনের নানা মোশারফ হোসেন মাস্টার বলে, আমার জামাইয়ের নাম সিকন্দার আলী। সে ঢাকার দনিয়া এলাকায় বসবাস করত। ২০১৯ সালে তিনি মারা যান। জামাইয়ের মৃত্যুর পর আমার মেয়ে দুই নাতনিকে নিয়ে ঢাকা থেকে গাজীপুরে চলে আসে। এখন তারা আমার এখানেই বসবাস করছে। বাবা মারা যাওয়ার এক বছর পরেই স্নাতক পাস করে সাইদা।  

কনে সাইদা ইসলাম বলেন, ২০২১ সালের এপ্রিলে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে প্রথম পরিচয় হয় রাইয়ান কফম্যানের সঙ্গে। এ সময় আমরা নিজেদের ফোন নম্বর, ফেসবুক আইডি ও ঠিকানা বিনিময় করেছি । এরপর থেকে নিয়মিত যোগাযোগ করতাম। ফোন ও ভিডিও কলে কথা বলতে বলতে আমাদের সম্পর্ক আরও ঘনিষ্ঠ হয়ে যায় এবং দুজন দুজনকে ভালোবেসে ফেলেছি । এভাবে প্রায় এক বছর প্রেম করি।

তিনি আরও বলেন, এরপর দুজনে বিয়ে করার সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলি। রাইয়ান বিয়ে করার জন্য খ্রিষ্টান ধর্ম ত্যাগ করে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করতে রাজি হয় । পরে তার ও আমার পরিবারের সম্মতিতে এ বছরের ২৯ মে যুক্তরাষ্ট্র থেকে বাংলাদেশে আসেন তিনি। এ দিনই আমাদের প্রথম দেখা হয় সামনা সামনি।

এয়ারপোর্ট থেকে রাইয়ান আমার সঙ্গে নানা বাড়িতে আসে। পরে সামাজিক ও ধর্মীয় রীতি অনুযায়ী বিয়ের যাবতীয় আনুষ্ঠানিকতা শেষ হয়। বর্তমানে আমরা নানা-বাড়িতে আছি। 

তবে সাইদার স্বজন ও বাংলাদেশিদের বিষয়ে অভিজ্ঞতা ব্যক্ত করতে গিয়ে রাইয়ান বলেন, বাঙালিরা খুবই অতিথি পরায়ন করে । আমেরিকায় অচেনাদের সঙ্গে কেউ খুব একটা কথা বলেতে চায় না। কিন্তু বাংলাদেশে আসার পর দেখছি আমার প্রতি সবাই খুবই আন্তরিক দেখাচ্ছে । 

সাইদাকে যুক্তরাষ্ট্রে নিয়ে যাওয়া প্রসঙ্গে রাইয়ান বলেন, আনুষঙ্গিক কাগজপত্র ও ভিসা প্রসেসিং করতে কয়েক মাস সময় লাগতে পারে। এসব সম্পন্ন হলেই সাইদাকে আমেরিকায় নিয়ে যাব।