বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশকে এক অনন্য উচ্চতায় নিয়ে যাচ্ছেন তাঁর কন্যা শেখ হাসিনা

151

পানি সম্পদ উপমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক একেএম এনামুল হক শামীম  বলেছেন, বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশকে এক অনন্য উচ্চতায় নিয়ে যাচ্ছেন তাঁর কন্যা শেখ হাসিনা। বাংলাদেশকে উন্নত বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন তিনি।

দেশের মানুষকে নদীভাঙনের হাত থেকে রক্ষা করার জন্য কাজ করছেন। হাওর এলাকার কৃষকের মুখে হাঁসি ফোটাতে কাজ করে চলছেন। তিনি বয়স্কভাতা, বিধবাভাতা, প্রতিবন্ধীভাতাসহ সকল সেবা শতভাগ নিশ্চিত করে চলছেন। এমন জনবান্ধব প্রধানমন্ত্রী পৃথিবীতে বিরল।

আজ শরীয়তপুরের নড়িয়ার উপজেলার ঘড়িষার ইউনিয়নে আওয়ামীলীগ ও রত্নগর্ভা মা বেগম আশ্রাফুন্নেছা ফাউন্ডেশনের পক্ষ থেকে অসহায়দের শাড়ি, লুঙ্গি বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

উপ-মন্ত্রী শামীম বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সততা, মেধা, যোগ্যতা, উন্নয়ন ও অগ্রগতির কারণে তিনি চারবার প্রধানমন্ত্রী হয়েছেন। আগামী নির্বাচনে এদেশের জনগণ আওয়ামীলীগকে নির্বাচিত করে তাকে ৫ম বারের মত প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব দিবেন। তার নেতৃত্বে  বাংলাদেশ সামাজিক অর্থনৈতিক সব সূচকেই  এখন বিশ্বের জন্য এক অনুকরণীয় দেশে পরিণত হয়েছে।

এনামুল হক শামীম বলেন, বাংলাদেশে এখন বিনিয়োগকারীদের এক নম্বর পছন্দের দেশ। জননেত্রী শেখ হাসিনার দূরদর্শী নির্দেশনায় বাংলাদেশ পৌঁছে যাচ্ছে তার কাঙ্ক্ষিত গন্তব্যে। যে আধুনিক বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্ন দেখেছিলেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। তার সেই স্বপ্ন বাস্তবায়নে কাজ করে যাচ্ছেন তাঁরই জ্যেষ্ঠ

কন্যা। ২০০৮ সাল থেকে টানা তিন মেয়াদে দেশের অর্থনৈতিক মহাপরিকল্পনা গ্রহণ করায় বিজয়ের ৫০ বছরে অর্থ ও বাণিজ্যের বিভিন্ন সূচকে বাংলাদেশের অর্জন বিশ্ববাসীকে তাক লাগিয়ে দিয়েছে। দারিদ্র্য দূরীকরণ, অর্থনৈতিক মুক্তি, রিজার্ভ, প্রবৃদ্ধি ও মাথাপিছু আয়ে উন্নত দেশগুলোকেও টেক্কা দিচ্ছে বাংলাদেশ।

উপমন্ত্রী বলেন, গ্রামাঞ্চলেও এখন ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ। সব কিছু সম্ভব হয়েছে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার জন্য। স্বাধীনতার নেতৃত্বদানকারী রাজনৈতিক দল আওয়ামীলীগের হাল ধরেছিলেন বলেই এই অর্জন।  শেখ হাসিনা তার অসীম সাহসিকতা আর মানবিকতা দিয়েই জয় করছেন সব কিছু। তাই এদেশের জনগণ একমাত্র তার প্রতি আস্থাশীল।


তিনি ক্ষমতায় আছেন বলেই পদ্মা সেতু হয়েছে। শরীয়তপুরে ফোরলেন রাস্তা হচ্ছে,শেখ হাসিনা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় হচ্ছে। মেঘনা সেতু নির্মানের জন্য পরীক্ষা নিরীক্ষা চলছে। শরীয়তপুর জেলা সবদিক থেকে এগিয়ে যাচ্ছে। শরীয়তপুরের মানুষ প্রধানমন্ত্রীর প্রতি চিরকৃতজ্ঞ।

এসময় আরো উপস্থিত  ছিলেন, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ছাবেদুর রহমান খোকা সিকদার, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক উপ কমিটির সদস্য জহির সিকদার, নড়িয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শেখ রাশেদ উজ্জামান, পৌরসভার মেয়র আবুল কালাম আজাদ, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক সাধারণ

সম্পাদক মাস্টার হাসানুজ্জামান খোকন, উপজেলা ভাইস-চেয়ারম্যান জাকির বেপারী, ঘড়িষার ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রব খান, ভূমখাড়া ইউপি চেয়ারম্যান আলমগীর হোসেন প্রমূখ।

এর আগে সুরেশ্বর লঞ্চঘাটে যাত্রী ছাউনী ও পরে কদমতলা এলাকায় ইম্পেরিয়াল হসপিটাল এন্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারের উদ্বোধন করেন উপমন্ত্রী।