নেপালের লর্ডস অব ড্রিঙ্কস নৈশক্লাবে রাহুল গান্ধীর পার্টি, ভিডিও ভাইরাল (ভিডিও)

207

সম্প্রতি ভারতের কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধীর একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে। সেখানে দেখা গেছে, নেপালের রাজধানী কাঠমান্ডুর একটি নৈশক্লাবে বন্ধুদের সঙ্গে পার্টিতে মেতেছেন তিনি। ভিডিওটি ধারণ করা হয়েছে নেপালের লর্ডস অব ড্রিঙ্কস নৈশক্লাবে।

ফাঁস হওয়া ভিডিওতে এক নারীর সঙ্গে দেখা গেছে রাহুলকে। নৈশক্লাবে গানের সুরে মগ্ন রয়েছেন রাহুল গান্ধী। এক পর্যায়ে তিনি তার পাশে থাকা এক নারীর কানেকানে কথা বলছিলেন। ভিডিওটি ফাঁস হওয়ার পর খবর চাউর হয়, ওই নারী নাকি নেপালে নিযুক্ত চীনা রাষ্ট্রদূত হাউ ইয়ানকি। বিজেপির অনেক নেতা বিষয়টি নিয়ে টুইটও করেন।

অবশ্য লর্ডস অব ড্রিঙ্কস পানশালা কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, তাদের পানশালায় পাঁচ-ছয় জনের সঙ্গে এসেছিলেন রাহুল গান্ধী। ভিডিওতে তার সঙ্গে যে নারীকে দেখা গেছে তিনি নিশ্চিতভাবেই চীনের রাষ্ট্রদূত নন। তিনি একজন নেপালি নারী।

সম্প্রতি রাহুল গান্ধী তার সাংবাদিক বন্ধু সুমনিমা উদাসের বিয়ের অনুষ্ঠানে যোগ দিতে নেপালে যান। কাঠমান্ডুর ম্যারিয়ট হোটেলে বিয়ের অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। কাঠমান্ডুর ত্রিভুবন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছানোর পর রাহুল গান্ধী তার তিন সঙ্গীর সঙ্গে ম্যারিয়ট হোটেলে যান।

এ প্রসঙ্গে সুমনিমার বাবা ও মিয়ানমারে নিযুক্ত নেপালের রাষ্ট্রদূত ভীম উদাস বলেন, আমরা রাহুল গান্ধীকে আমার মেয়ের বিয়েতে যোগ দেওয়ার আমন্ত্রণ জানিয়েছিলাম।

উল্লেখ্য, সুমনিমা উদাস যাকে বিয়ে করেছেন তার নাম মার্টিন শেরপা। সুমনিমা যুক্তরাষ্ট্রের একটি একটি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সাংবাদিকতায় স্নাতকোত্তর এবং অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেছেন। তিনি সিএনএন ইন্টারন্যাশনালে সাংবাদিক হিসেবে কাজ করেছেন।

সুমনিমা উদাস

তুখোড় সাংবাদিক হিসেবে সুপরিচিত সুমনিমা। কাজ করেন রাজনীতি, অর্থনৈতিক ও সামাজিক বিভিন্ন ইস্যু নিয়ে। দিল্লি গণধর্ষণের ওপর প্রতিবেদন লিখে আলোচিত হয়েছিলেন তিনি। সাংবাদিকতা পেশায় অনেক পুরস্কারও অর্জন করেছেন সুমনিমা। ২০১৪ সালে আমেরিকান জার্নালিস্ট অব দ্য ইয়ার পুরস্কার বগলদাবা করেন। সিনে গোল্ডেন ঈগল পুরস্কারও পেয়েছেন তিনি।

এদিকে রাহুলের নেপাল সফর নিয়ে সমালোচনায় মুখর হয়েছেন বিজেপি নেতারা।

বিজেপি নেতা অমিত মালব্য এক টুইটে লিখেছেন, রাহুল গান্ধী একটি নাইটক্লাবে ছিলেন যখন মুম্বাই অবরোধ করা হয়েছিল। তিনি এমন সময়ে একটি নাইটক্লাবে ছিলেন যখন তার দল বিস্ফোরিত হচ্ছিল।

বিজেপি নেতা শাহনওয়াজ হুসেন কটাক্ষ করে বলেন, তিনি (রাহুল গান্ধী) প্রতিদিন পার্টি করেন। কেউ তাকে বাধা দেয় না। সংবিধানে এমন কোনো নিয়ম নেই যেখানে কাউকে পার্টি করা থেকে বিরত রাখা যায়। তিনি (রাহুল গান্ধী) বেশি পার্টি করেন এবং নিজের পার্টির (কংগ্রেস) জন্য কম কাজ করেন।

অন্যদিকে রাহুল গান্ধীর পক্ষ নিয়ে কংগ্রেসের মুখপাত্র রণদীপ সিং সুরজেওয়ালা বলেন, তিনি (রাহুল গান্ধী) বন্ধুর ব্যক্তিগত বিয়ের অনুষ্ঠানে যোগ নিতে বন্ধুত্বপূর্ণ দেশ নেপালে গিয়েছেন। পরিবার ও বন্ধুবান্ধব থাকা এবং বিয়ের অনুষ্ঠানে যোগ দেওয়া আমাদের সংস্কৃতির অংশ। বিয়েতে যোগ দেওয়া ও বন্ধু থাকা অপরাধ নয়। অন্তত এটা এখনও এই দেশে অপরাধ হয়ে ওঠেনি। হয়তো আজকের পর বিজেপি সিদ্ধান্ত নিতে পারে, এটা বেআইনি।