ধেয়ে আসছে ‘মনস্টার’ গ্রহাণু, হুমকির মুখে পৃথিবী

232

পৃথিবীর দিকে তীব্র গতিতে ধেয়ে আসছে বিশাল আকৃতির গ্রহাণু। পিরামিডের সমান এই গ্রহাণু পৃথিবীতে আছড়ে পড়লে ধ্বংস হয়ে যেতে পারে আমাদের প্রিয় পৃথিবী। আকৃতির বিশালতার কারণে মহাকাশ গবেষণা কেন্দ্র নাসা এর নাম দিয়েছে ‘মনস্টার’।

আসছে ২৪ মার্চ, বৃহস্পতিবার পৃথিবীর খুব কাছে চলে আসবে গ্রহাণুটি। এদিন পৃথিবী ও গ্রহাণুটির মধ্যে দূরত্ব থাকবে মাত্র তিন মাইল। কোনোভাবে যদি গ্রহাণুটি পৃথিবীর বুকে আছড়ে পড়ে তাহলেই সর্বনাশ। সম্প্রতি নাসার ব়াডারে ধরা পড়েছে, তীব্রবেগে গ্রহাণুটির ছুটে আসার দৃশ্য। এর পরপরই সতর্কতা জারি করেছে নাসা।

তাহলে কি ১৫০৩ সালে জন্ম নেয়া বিখ্যাত জ্যোতিষী নস্ত্রাদামুসের ভবিষ্যদ্বাণী সত্যি হতে চলেছে? আজ থেকে প্রায় ৫০০ বছর আগেই তিনি বলে গিয়েছিলেন, ২০২২ সালে গ্রহাণুপুঞ্জ আছড়ে পড়বে পৃথিবীর বুকে। বলা যায় না, তার ভবিষ্যদ্বাণী সত্যিও হতে পারে। কারণ এর আগে তার দুটি ভবিষ্যদ্বাণী মিলে গেছে। একটি হলো, যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কে টুইন টাওয়ারে সেপ্টেম্বর ১১তে ভয়াবহ জঙ্গী হামলা আর অন্যটি হলো বিশ্বজুড়ে করোনা মহামারি।

‌‌২০১৩ সালর জানুয়ারি মাসে ‘মনস্টার’ গ্রহাণুটিকে প্রথম পৃথিবীর দিকে ধেয়ে আসতে দেখে নাসা। তখনও সতর্কতা জারি করেছিল নাসা। সেসময় পৃথিবী থেকে প্রায় দেড় কোটি মাইল দূরে ছিল গ্রহাণুটি। কিন্তু সময়ের ব্যবধানে পৃথিবীর অনেকটাই কাছে চলে এসেছে গ্রহাণুটি।

নাসা জানিয়েছে, ২৪ মার্চ, বৃহস্পতিবার পৃথিবীর সবচেয়ে কাছে চলে আসবে ‌‌’মনস্টার’। সেদিন এটি পৃথিবী থেকে মাত্র তিন মাইল দূরে থাকবে। ছুটন্ত অবস্থায় পৃথিবীকে পাশ কাটিয়ে চলে গেলে তো খুবই ভালো। কিন্তু মহাকর্ষের কারণে যদি পৃথিবীর সঙ্গে গ্রহাণুটির সংঘর্ষ হয় কিংবা পৃথিবীর বুকে আছড়ে পড়ে তাহলেই বিপদ। নাসা সতর্কতা জারি করে বলেছে, গ্রহাণুটির সামান্য অংশও পৃথিবীর সর্বনাশ ঘটানোর জন্য যথেষ্ট।