ধর্ষককে হত্যার পর দুই টুকরো করে ভাসিয়ে দেয়া হলো নদীতে

229
ভারতের মধ্যপ্রদেশে কিশোরী মেয়ের ধর্ষণকারীকে কেটে দুই টুকরো করে নদীর পানিতে ভাসিয়ে দিয়েছেন বাবা।
ভারতের মধ্যপ্রদেশে কিশোরী মেয়ের ধর্ষণকারীকে কেটে দুই টুকরো করে নদীর পানিতে ভাসিয়ে দিয়েছেন বাবা।

অনেক সিনেমার সংলাপেই বাবার মুখে তার মেয়েকে বলতে শোনা যায়, কেটে টুকরো টুকরো করে নদীতে ভাসিয়ে দেবো। সিনেমার এই সংলাপের মতোই ঘটনা ঘটেছে ভারতের মধ্যপ্রদেশে। তবে মেয়েকে নয়, কিশোরী মেয়ের ধর্ষণকারীকে কেটে দুই টুকরো করে নদীর পানিতে ভাসিয়ে দিয়েছেন বাবা। খুন করার সময় তার সঙ্গে ধর্ষিতার মামাও ছিলেন।

লোমহর্ষক ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের মধ্যপ্রদেশের খান্দোয়া জেলায়। ধর্ষণের শিকার মেয়েটির বয়স মাত্র ১৪ বছর। তাকে ধর্ষণ করে তারই এক বৃদ্ধ আত্মীয়। ধর্ষকের নাম ত্রিলোকচাঁদ (৫৫)। তিনি শক্তপুর গ্রামের বাসিন্দা।

রবিবার, ২৭ মার্চ খান্দোয়া সদর থেকে প্রায় ৪০ কিলোমিটার দূরে আজনাল নদীতে একটি দ্বিখন্ডিত লাশ ভাসতে দেখা যায়। পরে সেই ছবি ছড়িয়ে পড়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে।

ভারতীয় পুলিশ সূত্রে জানা যায়, ধর্ষিতার বাবা ও মামা মিলে শনিবার, ২৬ মার্চ মোটরসাইকেলে করে ধর্ষক ত্রিলোকচাঁদকে আজনাল নদীর কাছে নিয়ে গিয়ে তাকে দুজন মিলে গলা কেটে হত্যা করে। এরপর মাছ কাটার ছুরি দিয়ে তার দেহকে দুই টুকরা করে নদীর পানিতে ভাসিয়ে দেয়।

পুলিশ আরও জানায়, হত্যাকান্ডের সঙ্গে জড়িত দুজনকেই গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এই ঘটনার সঙ্গে আর কেউ জড়িত আছে কিনা তাও তদন্তের মাধ্যমে খতিয়ে দেখা হচ্ছে।