দেশের মানুষের ভাগ্য নিয়ে কেউ কোনো খেলা খেলতে পারবে না : প্রধানমন্ত্রী

139
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, দেশের মানুষের ভাগ্য নিয়ে আর কেউ কোন খেলা খেলতে পারবে না। বাংলাদেশ যে অপ্রতিরোধ্য গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে, ইনশাল্লাহ সেভাবেই এগিয়ে যাবে।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, দেশের মানুষের ভাগ্য নিয়ে আর কেউ কোন খেলা খেলতে পারবে না। বাংলাদেশ যে অপ্রতিরোধ্য গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে, ইনশাল্লাহ সেভাবেই এগিয়ে যাবে।

শনিবার রাতে জয় বাংলার জয়োৎসব অনুষ্ঠানের উদ্বোধনী পর্বে প্রধান অতিথির ভাষণে এসব কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী। এদিন গণভবন থেকে তিনি ভার্চুয়ালি অনুষ্ঠানে যোগ দেন।

প্রধানমন্ত্রী তার ভাষণে বলেন, আজ বাংলাদেশ উন্নয়নশীল দেশের মর্যাদা লাভ করতে সক্ষম হয়েছে। মানুষের মাথাপিছু আয়, গড় আয়ু ও সাক্ষরতার হার বৃদ্ধি পেয়েছে। আমরা ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ে তুলেছি। শতভাগ বিদ্যুৎ দেওয়ার মাধ্যমে সকল ঘরে বিদ্যুতের আলো জ্বালিয়ে আমরা আলোর পথে যাত্রা করতে সক্ষম হয়েছি।

২০৪১ সালের বাংলাদেশ কেমন হবে সেই পরিপ্রেক্ষিত পরিকল্পনাও আমরা প্রণয়ন করে দিয়ে গেছি। পাশাপাশি ১০০ বছরের জন্য ডেল্টা প্ল্যান করে তার কিছু কিছু আমরা বাস্তবায়ন করে দিয়ে যাচ্ছি। যেন এই ব-দ্বীপ অঞ্চলের মানুষ প্রজন্মের পর প্রজন্ম সুন্দর এবং উন্নত জীবন পেতে পারে।

এদেশে একটি মানুষও আর ভূমিহীন বা গৃহহীন থাকবেনা। এভাবেই বাংলাদেশকে আমরা উন্নত সমৃদ্ধ করে গড়ে তুলবো।

আমরা স্যাটেলাইট যুগে প্রবেশ করেছি। নিউক্লিয়ার পাওয়ার প্লান্ট করেছি। অবকাঠামোগত উন্নয়ন করে যাচ্ছি। মানুষের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করছি। ১০০টি বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তুলছি যেন বাংলাদেশকে আর কখনো কেউ অবহেলা করতে না পারে।

এই বিশাল কর্মযজ্ঞের একটাই উদ্দেশ্য, বাংলাদেশের মানুষ যেন বিশ্ব-দরবারে মাথা উঁচু করে চলতে পারে। শিক্ষায়-দীক্ষায়, জ্ঞানে-বিজ্ঞানে, প্রযুক্তি জ্ঞানে- সবদিক থেকে যেন আমরা এগিয়ে থাকতে পারি ।

দেশের মানুষের মৌলিক চাহিদা অন্ন, বস্ত্র, বাসস্থান, শিক্ষা, চিকিৎসার ব্যবস্থা আমরা করেছি এবং এগিয়ে যাচ্ছি।

আমি এদেশের জনগণের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাই, তারা বারবার ভোট দিয়ে আমাদের তাদের সেবা করার সুযোগ দিয়েছেন। আর সেজন্যই আজকে ২০২০ সালে জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকী পালন করার সুযোগ পেয়েছি। ২০২১ সাল স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপনের সুযোগ পেয়েছি।

২৫ মার্চ পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী আক্রমণ শুরু করে রাজারবাগ পুলিশ লাইন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, পিলখানাসহ ধানমন্ডির বাড়িতে। জাতির পিতা তখনই পূর্বপরিকল্পিতভাবে স্বাধীনতার ঘোষণা প্রচার করেছিলেন।

তৎকালীন ইপিআর বর্তমান বিজিবি’র হেড কোয়ার্টার থেকে সুবেদার মেজর শওকত আলী তার চারজন সঙ্গীসহ জাতির পিতার এই ভাষণ সারাদেশে ছড়িয়ে দেন।

বিভিন্ন পুলিশ স্টেশনে টেলিগ্রাম, টেলিপ্রিন্টারের মাধ্যমে ২৫ মার্চ রাত এবং ২৬ মার্চ ভোর রাতের আগেই সারাদেশে এই বার্তাটা পৌঁছে যায়। ২৬ মার্চ এ ঘোষণার সঙ্গে সঙ্গেই বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবকে তারা নিয়ে যায় পাকিস্তানে এবং বন্দি করে রাখে। রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা দেয়। তাকে ফাঁসি দেওয়ার জন্য অর্ডার দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী ১৬ ডিসেম্বর আত্মসমর্পণ করতে বাধ্য হয়।