Home খবর সারা বাংলা দুর্যোগ মোকাবিলায় বাংলাদেশ অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে

দুর্যোগ মোকাবিলায় বাংলাদেশ অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে

দুর্যোগ মোকাবিলায় বাংলাদেশ অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে
দুর্যোগ মোকাবিলায় বাংলাদেশ অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে

মো.মুক্তার হোসেন বাবু,চট্টগ্রাম ব্যুরো: চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মো. রেজাউল করিম চৌধুরী বলেছেন, বাংলাদেশ বিশ্বের একটি অন্যতম দূর্যোগ প্রবন দেশ হিসেবে যেমন চিহ্নত তেমনি দূর্যোগ মোকাবেলায় অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপনকারী দেশ হিসেবে স্বীকৃত। দূর্যোগ ব্যবস্থাপনার ক্ষেত্রে দেশের এই সফলতার চাবি কাঠি হচ্ছে দূর্যোগ ব্যবস্থপনার নীতিমালা সমুহ। চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন যে কোন দূর্যোগ মোকাবেলায় অনন্য দায়িত্ব পালন করে আসছে।

বিগত করোনা মোকাবেলায় সারা দেশের মধ্যে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের উল্লেখ্য যোগ্য ভূমিকায় কারণে দেশব্যাপী আমাদের কর্মকান্ডকে অনুসরণ করতে বাধ্য হয়েছে। নগরীতে ইতোমধ্যে ৪১টি ওয়ার্ডে নগর স্বেচ্ছাসেবক ব্যবস্থাপনার নীতিমালা অনুসরণ করে কমিটি গঠন করা হয়েছে।

সেভ দ্যা চিনড্রেন প্রয়াসের সহায়তার নগরীর ৪টি ওয়ার্ডে ঝুঁকিপূর্ণতা হ্রাসে বিভিন্ন কর্মসূচী বাস্তবায়ন করছে। আজকের এই কর্মশালাতে কাউন্সিলরগণ দূর্যোগ মোকাবেলায় তাদের ভূমিকা ও করনীয় সর্ম্পকে অবহিত হয়ে তা বাস্তবে প্রয়োগ করবেন বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

তিনি বলেন, আমরা দূর্যোগ মোকাবেলা করে যে অভিজ্ঞতা অর্জন করি তা সঠিকভাবে কাজে লাগাতে পারলে বড় কোন প্রশিক্ষণের প্রয়োজন পড়ে না। সম্প্রতি সীতাকুন্ডে সংঘটিত অগ্নিকান্ড ও বিস্ফোরণ হয়েছে তাতে আমাদের স্বেচ্ছাসেবকেরা যেভাবে ঝাঁপিয়ে পড়ে দিনের পর দিন কাজ করেছে এই কাজ থেকে যে অভিজ্ঞতা তারা অর্জন করেছে এর থেকে বড় প্রশিক্ষণ হতে পারে না। গতকাল বুধবার সকালে নগরীর থিয়োটার ইনষ্টিটিউটে নগর দুর্যোগ ব্যবস্থাপনায় স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের ভুমিকা শীর্ষক কর্মশালায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

চসিক প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ শহীদুল আলমের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব ড. নুরুন্নাহার চৌধুরী। স্বাগত বক্তব্য রাখেন ইপসার প্রধান নির্বাহী মো. আরিফুর রহমান। অন্যান্যের মধ্যে আরো বক্তব্য রাখেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনার ষ্টান্ডিং কমিটির সভাপতি কাউন্সিলর জহুরুল আলম জসিম, বর্জ্য বস্থাপনা ষ্টান্ডিং কমিটির সভাপতি কাউন্সিলর মোবারক আলী, সচিব খালেদ মাহমুদ, সেভ দ্যা চিলড্রেনের পরিচালক মোস্তাক হোসেন, প্রকৌশলী ড. তারেক বীন ইউসুফ, ইপসার নাছিমা বানু, ইপসার পরিচালক পলাশ কুমার চৌধুরী প্রমুখ।

বিশেষ অতিথি ড. নুরুন্নাহার চৌধুরী বলেন, এ ধরণের কর্মশালা আয়োজন করা আজকের এই প্রেক্ষাপটে সময়ের দাবি। ঝুঁকি হ্রাস, ঝুঁকির জন্য জরুরী সেবা প্রদান এবং ঝুঁকি মোকাবেলায় কি ধরণের প্রস্ততি গ্রহণ করা দরকার এসব বিষয়ে অবগত হওয়ার জন্য কর্মশালার প্রয়োজন রয়েছে। প্রশিক্ষিত স্বেচ্ছাসেবক তৈরী করা না গেলে দূর্যোগ মোকাবেলা কঠিন হয়ে পড়ে। তিনি জন প্রতিনিধিদের সম্পৃক্ততার মাধ্যমে দূর্যোগ মোকাবেলায় সচেতনতা সৃষ্টি করতে পারলে এই কর্মশালা স্বার্থক হবে।

Exit mobile version