দিনে অনশন, গভীর রাতে বিয়ে

145
দিনে অনশন,গভীর রাতে বিয়ে
দিনে অনশন,গভীর রাতে বিয়ে

ডোমার(নীলফামারী) প্রতিনিধিঃ জেলার ডোমারে বিয়ের দাবীতে প্রেমিকের বাড়ীতে একদিন অনশনের পর অবশেষে প্রেমিকার দাবী মেনে নিয়ে বিয়ের পিড়িঁতে বসেছেন প্রেমিক যুগল সোমবার ২৭ জুন সকালে বিয়ের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সংশ্লিষ্ঠ ইউপি সদস্য হরি দাস রায়। তিনি জানান, রবিবার রাত তিনটার দিকে ছেলে ও মেয়ের পরিবারের সম্মতিতে দুই চেয়ারম্যানের উপস্থিতিতে বিয়ে সম্পন্ন হয়েছে।

এরআগে শনিবার রাত থেকে উপজেলার সোনারায় ইউনিয়নের জামিরবাড়ী গুপ্তপাড়া এলাকার রাম কৃঞ্চ রায়ের ছেলে প্রেমিক জ্যোতিশ রায় মধুর বাড়ীতে বিয়ের দাবী নিয়ে হাজির হন উপজেলার হরিনচড়া ইউনিয়নের বাবুপাড়া এলাকার সুকুমার রায় দুলালের কলেজপড়ুয়া মেয়ে। ভুক্তভোগী কলেজছাত্রী ডোমার মহিলা ডিগ্রী মহাবিদ্যালয়ের এইচএসসি ২য় বর্ষের ছাত্রী এবং প্রেমিক মধু রংপুর কলেজে এইচএসসি ২য় বর্ষের ছাত্র। প্রেমিকা বাড়ীতে অবস্থান নেওযার পর থেকে বাড়ী থেকে পালিয়েছিলেন প্রেমিক মধু। এর আগে প্রেমিকা বাড়ীতে অবস্থান নেওয়ার পর থেকে প্রেমিক মধুর পরিবার জানিয়েছিল সে তার খালাতো বোনকে ১০ মাস আগে বিয়ে করেছে। এই কথা শোনার পর অনশনরত প্রেমিকা জানিয়েছিলেন প্রেমিক মধূর সাথে তার বিয়ে না হলে সে আত্মহত্যা করবে।

কলেজছাত্রীটি জানান, চার বছর ধরে তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক। বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে প্রেমিক মধু তার সাথে একাধিকবার দৈহিক সম্পর্ক গড়ে তোলে। ইদানিং সে আমাকে এড়িয়ে চলার চেষ্টা করছে। শনিবার দুপুরে তার সাথে মোবাইলে কথা হলে সে জানায় পরে তাকে ফোন দিবে। কিন্তু সে আর ফোন দেয়নি। তাই বাধ্য হয়ে আমি তার বাড়ীতে এসেছি। প্রেমিক মধূর সাথে বিয়ে না হলে সে আত্মহত্যারও হুমকি দিয়েছিলো।

হরিনচড়া ইউপি চেয়ারম্যান রাসেল রানা জানান, প্রেমিক মধুর সাথে তার খালাতো বোনের বিয়ের কথাটি মিথ্যা ছিল। ছেলের পরিবারকে বুঝিয়ে অবশেষে দুই পরিবার বিয়েতে সম্মত হয়। ছেলে ও মেয়ে দুইজনেই প্রাপ্ত বয়স্ক । এলাকার গন্যমান্য ব্যাক্তি ও সোনারায় ইউপি চেয়ারম্যানের উপস্থিতিতে বিয়ে সম্পন্ন হয়েছে। সোনারায় ইউপি চেয়ারম্যান গোলাম ফিরোজ চৌধুরীর বিয়ের বিষয়টি নিশ্চিত করে জানিয়েছেন দুই পরিবারের সম্মতিতে এবং ছেলের উপস্থিতিতে বিয়ে সম্পন্ন হয়েছে।