তেলের যৌক্তিক মূল্য নিশ্চিত করতে কাজ করছে সরকার : বাণিজ্যমন্ত্রী

126
তেলের যৌক্তিক মূল্য নিশ্চিত করতে কাজ করছে সরকার : বাণিজ্যমন্ত্রী
তেলের যৌক্তিক মূল্য নিশ্চিত করতে কাজ করছে সরকার : বাণিজ্যমন্ত্রী

বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেছেন, বিশ্ববাজারে ভোজ্য তেলের মূল্য পরিস্থিতি প্রচার মাধ্যমে তুলে ধরা প্রয়োজন। ভোজ্য তেল একটি আমদানি-নির্ভর পণ্য। দেশের মোট চাহিদার মাত্র ১০ ভাগ স্থানীয় উৎপাদন থেকে মিটানো হয়, অবশিষ্ট ৯০ ভাগই আমদানি করে প্রয়োজন মিটাতে হয়। আন্তর্জাতিক বাজারে ভোজ্য তেলের মূল্য ও পরিবহন ব্যয় বৃদ্ধি পাবার কারণে আমাদের দেশেও এর প্রভাব পড়েছে। আমরা চেষ্টা চালাচ্ছি, যাতে ভোজ্য তেলের মূল্য যৌক্তিক পর্যায়ে থাকে এবং বাজারে যাতে তেলের কোন ঘাটতি না হয়, সরবরাহ যেন স্বাভাবিক থাকে। আমাদের প্রতিবেশী দেশগুলোতেও ভোজ্য তেলের মূল্য আমাদের দেশের তুলনায় বেশি বেড়েছে।

বাণিজ্যমন্ত্রী আরও বলেন, বাংলাদেশে এখন প্রতি লিটার বোতলজাত ভোজ্য তেলের মূল্য ১৯৮ টাকা, একই সময়ে ভারতে বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় ২২৪.৬৫ টাকা, পাকিস্তানে প্রায় ২৩৮.৬৯ টাকা এবং নেপালে প্রায় ২১৪.৭৫ টাকা।

বাণিজ্যমন্ত্রী আজ ঢাকায় সচিবালয়ে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সম্মেলনকক্ষে ভোজ্য তেলের বাজার ব্যবস্থাপনা নিয়ে আয়োজিত প্রেস ব্রিফিং এ এসব কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, আমরা কঠোর ভাবে মনিটরিং করছি যাতে তেলের ক্রয় মূল্য, পরিবহন ব্যয়, শুল্কসহ সবধরনের ব্যয় ধরে যৌক্তিক পর্যায়ে ভোজ্য তেলের মূল্য নিশ্চিত করা যায়। ভোজ্য তেলের সরবরাহ নিশ্চিত করতে মিলগেইট থেকে শুরু করে পাইকারি এবং খুচরা পর্যায়ে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের মনিটরিং জোরদার করা হয়েছে। অনিয়ম ধরা পড়লে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে। পবিত্র ঈদুল ফিতরের আগে কিছু অসৎ ব্যবসায়ী বাজারে ভোজ্য তেল সরবরাহ না করে মজুত করার চেষ্টা করেছে, অভিযান পরিচালনা করে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।

টিপু মুনশি বলেন, টিসিবি’র মাধ্যমে ভর্তুকি মূল্যে ভোজ্য তেল সরবরাহ অব্যাহত রয়েছে। পবিত্র রমজান উপলক্ষ্যে দেশের ১ কোটি নিম্নআয়ের পরিবারকে ভোজ্য তেলসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য ভর্তুকি মূল্যে সরবরাহ করা হয়েছে। আগামী জুন থেকে আবারও এক কোটি পরিবারকে ভর্তুকি মূল্যে ভোজ্যতেল সরবরাহ করা হবে।

সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, বিশ্ববাজারে ভোজ্য তেলের মূল্যবৃদ্ধির কারণে মূল্য স্থিতিশীল ও সরবরাহ স্বাভাবিক রাখতে ১০ ভাগ ভ্যাট প্রত্যাহার করা হয়েছে। অগ্রাধিকার ভিত্তিতে আমদানিকৃত তেল খালাস, শুল্কায়ন এবং পরিবহনের ব্যবস্থা করা হয়েছে। ডিলারদের নামে ভোজ্য তেলের সাপ্লাই অর্ডার (এসও) এর মাধ্যমে তেল উত্তোলনের সময় কমিয়ে ১৫ দিন করা হয়েছে, যাতে বাজারে তেলের সরবরাহ স্বাভাবিক থাকে। রিফাইনারিগুলো থেকে প্রতি দিনের তেল সরবরাহের তথ্য বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে জমা নেয়া হচ্ছে।

অনুষ্ঠানে মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব তপন কান্তি ঘোষ, বাংলাদেশ ট্রেড এন্ড টেরিফ কমিশনের চেয়ারম্যান মো. আফজাল হোসেন, টিসিবি’র চেয়ারম্যান ব্রি.জে. মো. আরিফুল হাসান, জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতরের মহাপরিচালক এ এইচ এম সফিকুজ্জামান, এফবিসিসিআই এর সিনিয়র সহ-সভাপতি মোস্তফা আজাদ চৌধুরী বাবুসহ ভোজ্য তেল ব্যবসায়ীগণ উপস্থিত ছিলেন।