তেঁতুলিয়ায় ইউএনও’র উদ্যোগে মুক্তি পেলেন পানিবন্দি বহু মানুষ

106


মুহম্মদ তরিকুল ইসলাম, পঞ্চগড় প্রতিনিধি : পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়া উপজেলার দেবনগড় ইউনিয়নের দফাদার পাড়া ও মাগুরমারী চৌরাস্তা গ্রামের প্রায় পাঁচ হাজার মানুষের বাড়ি ও কৃষিজমির পানি বন্দির দশা থেকে সাময়িক মুক্তি দিলেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার সোহাগ চন্দ্র সাহা।

মঙ্গলবার (২৮ জুন ২০২২) বিকালে ইউপি চেয়ারম্যান সলেমান আলীর অভিযোগের ভিত্তিতে স্থানীয় চেয়ারম্যানকে সাথে নিয়ে দফাদার পাড়া গ্রামে অবস্থিত ভিলেজ এগ্রোটেক লি. নির্মিত কালভাটটি পরিদর্শন করেন এবং তার উপস্থিতিতেই পানির গতিপথ স্বাভাবিক করতে কালর্ভাটটি ভেঙে ফেলার নির্দেশ দেন। এতে দুই ঘণ্টার মধ্যে পানি স্বাভাবিক গতিপথ ফিরে পায় এবং পানিতে ডুবে থাকা কয়েকশ একর ফসলি জমি রক্ষা পায়।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, প্রায় পাঁচ বছর যাবৎ এ অঞ্চলের মানুষ বর্ষাকালে পানি বন্দি থাকতো। কারণ হিসাবে ধারণা করা হতো ভিলেজ এগ্রোটেক লিঃ এর নিজস্ব কালভার্ট। গ্রামের মানুষের অভিযোগ ছিল বর্ষার পানি উত্তর দিক থেকে প্রবাহিত হয়ে দক্ষিনের দিকে যেতো কিন্তু এগ্রোটেক লিঃ এর মুল ফটকের প¦ার্শ্ববর্তী রাস্তার ব্রিজের সামনে একাধিক ছোট ছোট কালভাট নির্মাণ করে পানির স্বাভাবিক গতিপথকে বাধাগ্রস্ত করেছে। ফলে প্রতি বর্ষামৌসুমে দুর্ভোগ পোহাতে হয় সাধারণ মানুষকে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, দুইটি গ্রামের প্রায় শতাধিক বাড়িতে উঠেছে পানি। গ্রামের রাস্তাঘাট পানি দিয়ে ভরাট। ঘরবন্দি হাজার হাজার মানুষ। ফসলের জমি তলিয়ে গেছে। আগাম ধানের বীজ ও চারা সহ ডুবে ব্যাপক ক্ষতির মধ্যে পড়েছে সাধারণ কৃষক।

ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মোঃ সলেমান আলী জানান, তিনি যখন দেখলেন মাগুরমারী ও দফদারপাড়া এলাকার হাজার হাজার মানুষ পানি বন্দি তখন তিনি ইউএনও মহোদয়কে অবগত করেন। তিনি আশা করছেন ইউএনও মহোদয় একটা স্থায়ী সমাধান করে দিবেন।

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সোহাগ চন্দ্র সাহা বলেন, ওই এলাকায় অবস্থিত ভিলেজ এগ্রোটেক লিমিটেড এর কিছু স্থাপনার কারনে পানির স্বাভাবিক গতিপথ বাধাগ্রস্ত হয়েছে। পানির গতিপথে বাধাগ্রস্থ কোম্পানির একটি ব্রীজ এলাকার জনস্বার্থে ভেঙ্গে দেয়া হয়েছে, এখন পানির প্রবাহ স্বাভাবিক চলছে। আগামীতে কোম্পানি ও স্থানীয়দের সাথে আলোচনা করে স্থায়ী সমাধানের দিকে এগিয়ে যাবেন বলে জানিয়েছেন। তিনি আরোও বলেন, উপজেলারয় ইউনিয়ন গুলোতে যত কালভার্ট রয়েছে সেগুলো যেন মাটি ভরাট করে পানির গতিপথ বন্ধ না করা হয় ইউপি চেয়ারম্যানগণকে সেদিকে খেয়াল রাখার জন্য বিশেষ নির্দেশ প্রদান করেছেন।