তারেক মাসুদ-মিশুক মুনীরের ১১তম মৃত্যুবার্ষিকী পালিত

164

শফিকুল ইসলাম সুমন, মানিকগঞ্জ থেকে : আজ ১৩ আগস্ট মানিকগঞ্জে শ্রদ্ধা, ভালোবাসা, স্মৃতিফলকে পুষ্পস্তবক অর্পণ, মানববন্ধন, বৃক্ষরোপন, স্মৃতিচারণমূলক আলোচনা সভাসহ নানা কর্মসুচীর মধ্য দিয়ে পালিত হয়েছে মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত বিশিষ্ট চলচ্চিত্র নির্মাতা তারেক মাসুদ এবং সাংবাদিক মিশুক মুনীরের ১১তম মৃত্যুবার্ষিকী।

শনিবার সকাল সাড়ে ১০টায় ঢাকা-আরিচা মহাসড়ক সংলগ্ন মানিকগঞ্জ জেলার ঘিওর উপজেলার জোকা এলাকার দুর্ঘটনাস্থলের স্মৃতিস্তম্ভের পাশে বিভিন্ন কর্মসূচীর মধ্য দিয়ে দিনটি পালন করে বিভিন্ন সংগঠন। যেসব সংগঠনের ব্যানারে এসব কর্মসূচী পালন করা হয় সেগুলোর মধ্যে রয়েছে মানিকগঞ্জ প্রেসক্লাব, তারেক মাসুদ-মিশুক মুনীর স্মৃতি পরিষদ, ঢাকা-মানিকগঞ্জ-পাটুরিয়া রেল লাইন বাস্তাবায়ন আন্দোলন কমিটি ও বারসিক ইত্যাদি।

এসময় তারেক মাসুদ-মিশুক মনির স্মৃতি ফলকে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন সংগঠনগুলোর নেতারা। এর আগে দুর্ঘটনাস্থলে নিরাপদ সড়কসহ বিভিন্ন দাবিতে মানববন্ধন করা হয়। মানববন্ধনের সভাপতিত্ব করেন মানিকগঞ্জ প্রেসক্লাবের সভাপতি গোলাম ছারোয়ার ছানু।

এসময় বক্তব্য রাখেন তারেক মাসুদ-মিশুক মনির স্মৃতি পরিষদের সাধারণ সম্পাদক সাংবাদিক রিপন আনসারী, প্রথম আলোর জেলা প্রতিনিধি আব্দুল মোমিন, ঘিওর প্রেসক্লাবের সাংবাদিক রাম প্রসাদ দীপু, একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মুল কমিটির মানিকগঞ্জ জেলা শাখার সভাপতি অ্যাডভোকেট দীপক ঘোষ, মানিকগঞ্জ প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক সাংবাদিক বিপ্লব চক্রবর্তী, বারসিকের জেলা সম্বনয়কারী বিমল রায় প্রমুখ।

২০১১ সালের ১৩ আগস্ট সকালে ’কাগুজের ফুল’ চলচ্রচিত্রের শুটিং স্পট দেখে মানিকগঞ্জের শিবালয় উপজেলার শালজানা গ্রাম থেকে ঢাকা ফিরছিলেন নির্মাতা তারেক মাসুদ, তার স্ত্রী ক্যাথরিন মাসুদ, প্রখ্যাত সাংবাদিক মিশুক মুনীরসহ ৯ জন। ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের ঘিওর উপজেলার জোকা এলাকায় তাদের মাইক্রোবাসটি পৌঁছালে বিপরীত দিক থেকে আসা চুয়াডাঙ্গা ডিলাক্স পরিবহরে বাসের সঙ্গে সংর্ঘষ হয়।

ভয়ংকর সেই দুর্ঘটনায় মাইক্রোসবাসটি দুমড়ে মুচড়ে যায়। মাইক্রোবাসের আরোহী তারেক মাসুদ, মিশুক মুনীরসহ প্রডাকশন সহকারী ওয়াসিম, জামাল এবং মাইক্রোবাস চালক মুস্তাফিজুর রহমানসহ মোট ৫ জন নিহত হন। ওই দুর্ঘটনায় আহত হন তারেক মাসুদের স্ত্রী ক্যাথরিন মাসুদ। আরও আহত হন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক প্রখ্যাত শিল্পী ঢালী আল মামুন এবং তার স্ত্রী দেলোয়ারা বেগম জলি।