টেকসই আর্থিক প্রতিষ্ঠানের স্বীকৃতি পেলো বাংলাদেশ ফাইন্যান্স লিমিটেড

100

নিজস্ব প্রতিবেদক: টেকসই আর্থিক প্রতিষ্ঠানের স্বীকৃতিস্বরুপ ক্রেস্ট ও সম্মাননা পেয়েছে বাংলাদেশ ফাইন্যান্স লিমিটেড। বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নও ফজলে কবিরের কাছ থেকে এ স্বীকৃতি গ্রহণ করেন প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ কায়সার হামিদ।

বৃহস্পতিবার কেন্দ্রীয় ব্যাংকের জাহাঙ্গীর আলম কনফারেন্স সেন্টারে আয়োজিত সাস্টেটেইন্যাবিলিটি রেটিংপ্রাপ্ত  ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানকে এ পুরস্কার দেন বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর। এই তালিকায় বেসরকারি খাতের সেরা ১০ ব্যাংককে টেকসই ব্যাংকের মর্যাদা দেওয়া হয়েছে। টেকসই মর্যাদা পেয়েছে সেরা পাঁচ আর্থিক প্রতিষ্ঠানও।

বাংলাদেশ ব্যাংক বলছে, টেকসই কোর ব্যাংকিং সূচকের মধ্যে প্রতিষ্ঠানের ঋণের মান, মূলধন পরিস্থিতি, এজেন্ট ব্যাংকিং কার্যক্রমকে বিবেচনায় নেওয়া হয়েছে। এছাড়া ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের সবুজ অর্থায়ন, ঋণগ্রহীতার সংখ্যা, গ্রামীণ অর্থায়ন, নারী ঋণগ্রহীতার সংখ্যা, কৃষিতে টেকসই অর্থায়ন, সবুজ অর্থায়নের ক্যাটাগরি ও প্রকল্পের পরিমাণ, ক্ষুদ্র ও অতিক্ষুদ্র উদ্যোক্তাদের অর্থায়ন, টেকসই অর্থায়নের ক্ষেত্রে খেলাপি ঋণ ইত্যাদি বিষয় বিবেচনায় নেওয়া হয়েছে। এর বাইরে ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের অভ্যন্তরীণ সবুজ ব্যাংকিংয়ের চর্চাকেও এ মানদ-ের অন্যতম নির্ধারক হিসেবে ব্যবহার করা হয়েছে। মূলত চারটি সূচকের ওপর ভিত্তি করে এই মান যাচাই করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

টেকসই অর্থায়ন নির্দেশক (সাসটেইনেবল ফাইন্যান্স ইন্ডিকেটর), সবুজ পুনঃঅর্থায়ন (গ্রিন রিফাইন্যান্স), সামাজিক দায়বদ্ধতা কার্যক্রম (সিএসআর) এবং মূল ব্যাংকিং কার্যক্রমের টেকসই সক্ষমতা (কোর ব্যাংকিং সাসটেইনেবিলিটি)।

টেকসই আর্থিক প্রতিষ্ঠানের স্বীকৃতি পাওয়ার পর আনুষ্ঠানিক প্রতিক্রিয়ায় বাংলাদেশ ফাইন্যান্সের ব্যবস্থাপনা পরিচালক বলেন, টেকসই অর্থায়নের অন্যতম পথিকৃৎ বাংলাদেশ ফাইন্যান্স।  সবুজ অর্থায়ন ,সামাজিক দায়বদ্ধতা এবং দেশের প্রান্তিক  জনগোষ্ঠীকে- বিশেষ করে নারী উদ্যোক্তাদের অর্থনৈতিক অগ্রযাত্রায় অন্তর্ভুক্তকরণের মাধ্যমে সরকারের টেকসই উন্নয়নের লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে বাংলাদেশ ফাইন্যান্স বদ্ধপরিকর বলেও জানান কায়সার হামিদ। অনুষ্ঠানের আরও উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ ব্যাংকের উর্ব্ধতন কর্মকর্তারা।