টিপকান্ডে বরখাস্ত পুলিশের বাইকের পেছনে তার গর্ভবতী স্ত্রী ছিলেন না (ভিডিও)

208

রাজধানীতে পিএইচডি ডিগ্রিধারী এক নারী প্রভাষক কপালে টিপ পরায় তাকে হেনস্তা এমনকি হত্যার চেষ্টা চালায় এক পুলিশ সদস্য। ঘটনাটি নিয়ে উত্তাল হয়ে ওঠে সারাদেশ, সোশ্যাল মিডিয়ায় ওঠে প্রতিবাদের ঝড়। টিপ পরায় কলেজ শিক্ষিকাকে হেনস্তার ঘটনায় অভিযুক্ত পুলিশ কনস্টেবল নাজমুল তারেককে পরে বরখাস্তও করা হয়।

কনস্টেবল নাজমুল তারেককে শনাক্ত ও গ্রেপ্তার করার পর সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি ছবি ভাইরাল হয়। সিসিটিভি ফুটেজ থেকে সংগৃহীত ছবিটিতে দেখা যায়, কনস্টেবল নাজমুল তারেকের বাইকের পেছনে কিছু একটা রয়েছে যা নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় বানোয়াট গল্প ফাঁদা হয়। দাবি করা হয়, নাজমুল তারেকের বাইকের পেছনে নাকি তার গর্ভবতী স্ত্রী বসা ছিলেন।

অনেকেই সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হওয়া ছবিটি শেয়ার করে উল্টো ভিকটিম ড. লতা সমাদ্দারকে আক্রমণ করতে থাকেন। ড. লতা সমাদ্দার কেন নাজমুল তারেকের বাইকের পেছনে তার গর্ভবতী স্ত্রী বসে থাকার বিষয়টি এড়িয়ে গেলেন তা নিয়েও প্রশ্ন তোলেন নেটিজেনরা।

ভাইরাল হওয়া ছবিটি নিজের ফেসবুকে শেয়ার করে একজন দাবি করেন, লতা সমাদ্দার থানায় যে অভিযোগ করেছেন সেখানেও উল্লেখ করেননি পুলিশ সদস্যের গর্ভবতী স্ত্রীর কথা। অথচ পুলিশ সদস্য ও লতা সমাদ্দারের বাকবিতণ্ডার সূচনাই হয় পুলিশ সদস্যের গর্ভবতী স্ত্রীর পায়ের সাথে ধাক্কা লাগাকে কেন্দ্র করে।

পরবর্তী সময়ে আরেকটি সিসিটিভির ফুটেজ বিশ্লেষণ করে দেখা যায়, কনস্টেবল নাজমুল তারেকের বাইকের পেছনে তার গর্ভবতী স্ত্রী বসে ছিলেন না। তার বাইকের পেছনে ছিল বাজারের ব্যাগ।