ঝিনাইগাতীতে ৫ কিমি কাঁচা রাস্তায় চরম দুর্ভোগে ১২ গ্রামের বাসিন্দা

230

গোলাম রব্বানী-টিটু, (শেরপুর) প্রতিনিধি : শেরপুরের ঝিনাইগাতী উপজেলার ব্র্যাক অফিসের উত্তর নুনখোলা থেকে নওকুচি সীমান্তের বানাইপাড়া পর্যন্ত প্রায় ৫ কিলোমিটার কাঁচা রাস্তা সংস্কার, সম্প্রসারণ ও পাকাকরণের অভাবে ১২ গ্রামের বাসিন্দাদের চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

উপজেলার নলকুড়া ইউনিয়নের নুনখোলা থেকে কাংশা ইউনিয়নের নওকুচি সীমান্তের বানাইপাড়া পর্যন্ত ৫ কিলোমিটার কাঁচা রাস্তা। এ রাস্তা দিয়ে ডেফলাই, গান্দিগাও, রাংটিয়া, শালচুড়া নওকুচি, হালচাটি, গজনী,ফুলহাড়ি,ডাকাবর,নুনখোলা, ভালুকা ও ঝিনাইগাতী সদর সহ কয়েক গ্রামের শতশত মানুষ প্রতিদিন যাতায়াত করে থাকে।

কিন্তু দীর্ঘ ৫০ বছরেও ওই কাঁচা রাস্তাটি সংস্কার, সম্প্রসারণ ও পাকাকরণের অভাবে পথচারীদের দুর্ভোগের সীমা থাকে না। নলকুড়া ইউনিয়নের ইউপি সদস্য আব্দুর রাজ্জাক, কাংশা ইউনিয়নের ইউপি সদস্য গোলাপ হোসেন জানান, এ রাস্তার চারপাশে ৪টি প্রাথমিক বিদ্যালয়, মাধ্যমিক উচ্চ বিদ্যালয় ২টি, কিন্ডারগার্টেন ৫টি ও মাদ্রাসা রয়েছে ৪টি।

তিনি বলেন, শুস্ক মৌসুমে যেমন তেমন বর্ষা মৌসুমে কাদাযুক্ত পানিতে ভিজে স্কুল কলেজে যেতে হয় শিক্ষার্থীদের। এ সময় শিক্ষার্থীসহ শতশত পথচারীর দুর্ভোগের সীমা থাকে না। এ পথে যানবাহন চলাচলতো দুরের কথা পায়ে হেটে যাতায়াতও কষ্টসাধ্য হয়ে পড়ে।

নুনখোলা গ্রামের রফিকুল ইসলামসহ আরো অনেকই বলেন, এ রাস্তার দুপাশে উৎপাদিত কৃষি পণ্য বাজারজাত করতে ও গবাদিপশু পারাপারে কৃষকদের নানা বিড়ম্বনার শিকার হতে হয়। তারা রাস্তাটি সংস্কার ও পাকাকরণের জোর দাবি জানান।

নলকুড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রুকনুজ্জামান বলেন, রাস্তাটি এলাকাবাসীর সংস্কার, সম্প্রসারণ ও পাকাকরণের দাবি দীর্ঘদিনের। কৃষির উন্নয়ন ও পথচারীদের দুর্ভোগ লাঘবে রাস্তাটি সংস্কার করা জরুরি হয়ে পরেছে।

এলজিইডি অফিস সূত্রে জানা গেছে, ঝিনাইগাতী শেরপুর উন্নয়ন প্রকল্পে রাস্তাটির নাম তালিকাভুক্ত করা হয়েছে। প্রকল্পের কাজ শুরু হলে রাস্তাটি পাকাকরণ করা হবে।

ঝিনাইগাতীতে ৫ কিমি কাঁচা রাস্তায় চরম দুর্ভোগে ১২ গ্রামের বাসিন্দা