জীবনের দুশ্চিন্তা কাটলো প্রতিবন্ধী রাজীবের

109

আনোয়ার হোসেন আকাশ, রাণীশংকৈল (ঠাকুরগাঁও) প্রতিনিধি : ঠাকুরগাঁওয়ের হরিপুর উপজেলার শারিরীক প্রতিবন্ধী রাজিব উদ্দিন (২৭)। সংসারের একমাত্র আয় রোজগারের তিন চাকার ভ্যানটি চুরি হওয়ার পর দুঃশ্চিন্তায় দিন কেটেছে তার পরিবারের। আয় রোজগারের একমাত্র সম্বল হারিয়ে যেন দিশেহারা হয়ে পড়েছিলেন তিনি। অবশেষে পাঁচদিন পর উপহার হিসেবে নতুন একটি ভ্যান পাওয়ায় খুশি রাজিব ও তার পরিবার। জীবনের দুশ্চিন্তা যেন কাটল প্রতিবন্ধী এই রাজীবের। গাড়িটি হাতে পেয়ে যেন খুশির হাসি থামছেনা তার। অনেকেই ধন্যবাদ দিয়েছেন এই মানবতার ফেরিওয়ালাকে। কিন্তু নিজেকে মানবতার ফেরিওয়ালা মানতে নারাজ তিনি।

পঞ্চান্ন হাজার টাকার মোটরচালিত নতুন একটি ভ্যান আনুষ্ঠানিকভাবে স্থানীয় জনপ্রতিধিসহ প্রতিবন্ধি রাজিবের হাতে তুলে দেন জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মাজহারুল ইসলাম সুজন।

যানা যায়,ঠাকুরগাঁও জেলার হরিপুর উপজেলার বকুয়া ইউনিয়নের দুলালপাড়া গ্রামে জন্ম রাজিব উদ্দিনের। জন্মগতভাবে শারিরীক প্রতিবন্ধী হয়ে বেড়ে উঠলেও ২০০৬ সালে বাবা মারা যাওয়ার পর অভাব অনটনে দিন কাটে পরিবারের। ২০১৯ সালে সাহায্য সহযোগীতা আর ঋণ মহাজন করে মটরচালিত একটি তিন চাকার ভ্যান ক্রয় করেন তিনি। ভ্যান চালিয়ে বৃদ্ধ মা, স্ত্রী ও এক সন্তানের পরিবারের খরচ বহন করছিলেন তিনি।

হঠাৎ গেল (২ আগস্ট) ভোর রাতে বসবাসরত সরকারের উপহার আশ্রয়ন প্রকল্পের তার বাসা থেকে চুরি হয়ে যায় ভ্যানটি। এ অবস্থায় হরিপুর থানায় অভিযোগ ও জনপ্রতিনিধিদের কাছে ধর্না দিয়েও ফেরত পায়নি ভ্যানটি। অসহায় হয়ে ঘুরে ফিরেছেন তিনি। সংসারের খরচ বহনে যখন দিশেহারা রাজিবের এমন খবরে এগিয়ে আসেন আওয়ামী লীগ নেতা মাজাহারুল ইসলাম সুজন। আনুষ্ঠানিকভাবে তুলে দেন নতুন একটি ভ্যান। অল্প সময়ে উপহার হিসেবে আয়ের পথ ফিরে পাওয়ায় খুশি রাজিব ও তার পরিবার।

স্থানীয়রা জানান, দ্রুত সময়ের মধ্যে নিজ অর্থায়নে নতুন ভ্যান উপহার হিসেবে তুলে দিয়েছেন আওয়ামী লীগ নেতা সুজন। এতে রাজিবের দুঃশ্চিন্তা কেটেছে। টাকা থাকলেও সবাই এমন কাজ করেন না। তিনি মানবিক বলেই করেছেন। এ ধরনের সহায়তা অব্যাহত রাখার আহবান এলাকাবাসির।

স্থানীয় বাসিন্দা জয়নাল,ফারুক সহ বেশ কয়েকজন বলেন,এমনি একজন মানবতার ফেরিওয়ালা আমাদের প্রয়োজন। যে একবার শুনামাত্র এই প্রতিবন্ধী রাজিবের পাশে এসে দাঁড়িয়েছে। শুধু রাজিব নয় আমরা যখনি সুজন ভাইয়ের কাছে যাই তখনি তিনি আমাকে পাশে থাকেন। তিনি হাজার হাজার অসহায় দরিদ্র মানুষকে ৫০ হাজারের নিজে কখনো দান করেননি। এলাকায় কেউ তাকে মানবতার ফেরিওয়ালা বলে আবার কেউ দানবির বলে।

জেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মাজাহারুল ইসলাম সুজন বলেন, রাজিবের বিষয়টি ফেসবুকের মাধ্যমে আমি জেনেছি। এরপর বিভিন্ন মাধ্যমে খবর নিয়ে রাজিবকে একটি ভ্যান দিয়েছি। আমি সব সময় অসহায় মানুষের পাশে থাকতে চাই। রাজিবের ইচ্ছায় আয়ের পথ ফিরিয়ে দিতে উপহার হিসেবে ভ্যানটি দেয়া হয়েছে। এমন মানবিক কাজে সব সময় পাশে থাকবো।

তিনি আরো বলেন,আমাকে অনেকে মানবতার ফেরিওয়ালা বলে। আসলে আমি মানবতার ফেরিওয়ালা নয়। আমি জনগনের পাশে থাকতে পাড়ি এটাই আমার কাছে অনেক বড় কিছু। আমি কোন মানবতার ফেরিওয়ালা হতে চাইনা। আমি চাই জনগনের পাশে থেকে তাদের সাহায্য করার।

ভ্যান গাড়ি বিতরণে উপস্থিত ছিলেন,হরিপুর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল কাইয়ুম পুষ্প,উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এসএম আলমগীর হোসেন,সাংগঠনিক সম্পাদক ইউনুস আলী,যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক আমজাদ আলী,আমতলী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মহাকান্ত,সাধারণ সম্পাদক মতিয়র রহমান,উপজেলা তাঁতী লীগের সভাপতি সাদেকুল ইসলাম প্রমুখ।