ছুরিকাঘাতে ভুঁড়ি বের করার পর জবাইয়ের প্রস্তুতি, অতঃপর

237
যাত্রাপথে তিনজন তাকে হাতিরঝিরি নামক নির্জন স্থানে পৌঁছালে মোটরসাইকেল থামিয়ে এলোপাতাড়ি চাকু মারতে থাকে। দুষ্কৃতিকারী পুতিয়া ও মোঃ সাইমুন তার হাত ধরে রাখে এবং মোঃ জামাল হোসেন তাকে ছুরি মারে। একপর্যায়ে তার হাত-পা বেঁধে জবাই করার প্রস্তুতিকালে আরেকটি মোটরসাইকেল আসতে দেখে দুষ্কৃতিকারীরা তাকে ফেলে জঙ্গলে পালিয়ে যায়। আমাকে ছুরি মারার সময় ঘাতক জামাল হোসেন বলছিল, আর মামলার স্বাক্ষী হবি?
যাত্রাপথে তিনজন তাকে হাতিরঝিরি নামক নির্জন স্থানে পৌঁছালে মোটরসাইকেল থামিয়ে এলোপাতাড়ি চাকু মারতে থাকে। দুষ্কৃতিকারী পুতিয়া ও মোঃ সাইমুন তার হাত ধরে রাখে এবং মোঃ জামাল হোসেন তাকে ছুরি মারে। একপর্যায়ে তার হাত-পা বেঁধে জবাই করার প্রস্তুতিকালে আরেকটি মোটরসাইকেল আসতে দেখে দুষ্কৃতিকারীরা তাকে ফেলে জঙ্গলে পালিয়ে যায়। আমাকে ছুরি মারার সময় ঘাতক জামাল হোসেন বলছিল, আর মামলার স্বাক্ষী হবি?

লামা (বান্দরবান) প্রতিনিধি : বান্দরবানের লামা উপজেলায় যাত্রীবেশে মোটরসাইকেলে উঠে চালককে ছুরিকাঘাত করে মোটরসাইকেল ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটেছে।

সোমবার (১১জুলাই) দিবাগত রাত ১০টায় লামা উপজেলার শিলেরতুয়া সড়কের হাতিরঝিরি এলাকায় এই ঘটনা ঘটে। আহত মোটরসাইকেল চালক মংয়োং থোয়াই মার্মা (৩৫) রূপসীপাড়া ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ড টিয়ারঝিরি পাড়ায় থাকতেন। বর্তমানে স্ত্রী, সন্তান নিয়ে রূপসীপাড়া বাজারে ভাড়া বাসায় বসবাস করেন। তিনি আলীকদম উপজেলার ৩নং নয়াপাড়া ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ড বাবু পাড়ার মংচহ্লা মার্মার ছেলে।

মংয়োং থোয়াই মার্মা বলেন, রাত সাড়ে ৯টায় রূপসীপাড়া বাজারে তিনজন লোক তাকে শিলেরতুয়া যাওয়ার জন্য ভাড়া করে। যাত্রী তিনজনের মধ্যে পুতিয়া নামের একজনকে তিনি চিনতেন, তাই ভাড়ায় যেতে রাজী হন।

মংয়োং থোয়াই মার্মা আরও বলেন, যাত্রাপথে তিনজন হাতিরঝিরি নামক নির্জন স্থানে পৌঁছালে মোটরসাইকেল থামিয়ে এলোপাতাড়ি চাকু মারতে থাকে আমাকে। দুষ্কৃতিকারী পুতিয়া ও মোঃ সাইমুন আমার হাত ধরে রাখে এবং মোঃ জামাল হোসেন ছুরি মারে। একপর্যায়ে আমার হাত-পা বেঁধে জবাই করার প্রস্তুতিকালে আরেকটি মোটরসাইকেল আসতে দেখে দুষ্কৃতিকারীরা আমাকে ফেলে জঙ্গলে পালিয়ে যায়। আমাকে ছুরি মারার সময় ঘাতক জামাল হোসেন বলছিল, আর মামলার স্বাক্ষী হবি?

মংয়োং থোয়াই মার্মা জানান, কয়েকদিন আগে রূপসীপাড়া ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডে এক গৃহবধূ ধর্ষণের ঘটনায় তাকে মামলায় স্বাক্ষী করা হয়। সেজন্য আসামীপক্ষ গিয়াস উদ্দিনের ভাই মোঃ জামাল হোসেন ভাড়া করা লোকজন দিয়ে এই ঘটনা ঘটিয়েছে।

ঘটনার পর গুরুতর আহত অবস্থায় মংয়োং থোয়াই মার্মাকে উদ্ধার করে রাত সাড়ে ১০টায় লামা হাসপাতালে নেওয়া হয়।

লামা হাসপাতালের জরুরি বিভাগে দায়িত্বরত চিকিৎসক মেসবাহ উদ্দিন জানান, আহত যুবকের সামনে (বুকে) ৭টি ও পিছনে (পিঠে) ২টি ছুরির আঘাত রয়েছে। পেটে ছুরির আঘাতে তার ভুঁড়ি বের হয়ে গেছে। আশংকাজনক হওয়ায় আহত ব্যক্তিকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার করা হয়েছে। প্রচুর রক্তক্ষরণ হয়েছে।

এদিকে ঘটনার পরপরই সন্ত্রাসী তিনজন ভাড়া করা মোটরসাইকেলটি নিয়ে শিলেরতুয়া দিয়ে পালিয়ে যেতে চেষ্টা করে। রূপসীপাড়া বাজার থেকে এই ঘটনার বিষয়ে ফোন পেয়ে শিলেরতুয়া এলাকায় স্থানীয় লোকজন পাহারা বসায় এবং সন্দেহভাজন দুজনকে আটক করে। তাদের কাছ থেকে ছুরি ও ভাড়া করা মোটরসাইকেলটি উদ্ধার করে স্থানীয়রা। পরে লামা থানা পুলিশ উপস্থিত হলে আটক দুজন সন্ত্রাসী, ছুরি ও মোটরসাইকেলটি বুঝিয়ে দেয়া হয়।

আটককৃতরা হলেন- মোঃ জামাল হোসেন (২৭) ও মোঃ সাইমুন (২০)। এছাড়া জনতার ধাওয়া খেয়ে পুতিয়া নামের আরেকজন পালিয়ে যায়।

স্থানীয় ওয়ার্ড মেম্বার আবু তাহের বলেন, খবর পেয়ে আমি ছুটে আসি। গরীব মোটরসাইকেল চালককে এভাবে ক্ষতবিক্ষত করার ঘটনায় সুবিচার দাবি করছি।

জনতার হাতে আটক দুজনকে গ্রেফতারের জন্য শিলেরতুয়া বাজারে সঙ্গীয় পুলিশ সদস্য নিয়ে উপস্থিত হন লামা থানা পুলিশের উপ-পরিদর্শক মোল্লা রমিজ জাহান জুম্মা। তিনি বলেন, জনতা দুজনকে আটক করে আমাদের হাতে তুলে দিয়েছে। সেই সাথে ছুরি ও মোটরসাইকেলটি আমরা বুঝে নিয়েছি। তাদের বিরুদ্ধে আইনী পদক্ষেপ নেয়া হবে।