চরফ্যাশনে অশনির প্রভাবে কৃষকের মাথায় হাত

117
চরফ্যাশনে অশনির প্রভাবে কৃষকের মাথায় হাত
চরফ্যাশনে অশনির প্রভাবে কৃষকের মাথায় হাত

মিজানুর রহমান চরফ্যাশন (ভোলা) প্রতিনিধি:ভোলার চরফ্যাশন উপজেলায় ঘূর্ণিঝড় অশনির প্রভাবে টানা বর্ষণে খেতে পানি জমে গেছে। এতে ফসলের ক্ষতির আশংকায় কৃষকরা। সোমবার (৯ মে) ভোর রাত থেকে বিরতিহীন বৃষ্টি হচ্ছে।

আবহাওয়া অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, আগামী কয়েকদিন পর্যন্ত বৃষ্টি অব্যাহত থাকতে পারে। বৃষ্টি হওয়ার আগে বেশ কিছুদিন যাবত ভ্যাপসা গরম ছিল। সোমবার থেকে অনবরত বৃষ্টি হওয়ার কারণে রবি ফসল ও বোরো ধানের ব্যাপক ক্ষতি হবে বলেজানিয়েছেন উপজেলা কৃষি অফিস।

 মঙ্গলবার সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়, উপজেলার নীলকমল, নুরাবাদ, আহাম্মদপুর, ওসমানগঞ্জ, আমিনাবাদ ও আবদুল্লাহপুরসহ ২১ ইউনিয়নে দুই দিনের অনবরত বৃষ্টির কারনে রবি ফসলের খেতে প্রচুর পানি জমে গেছে। ফসলের মাঠগুলোতে মুগডাল, আলু, মরিচ, চীনাবাদ ও বোরো ধান রয়েছে।

চরফ্যাশন উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, চলতি মৌসুমে ৮১ হাজার ৫৩০ হেক্টর জমিতে বোরো ধান, মুগডাল, আলু, মরিচ ও চীনাবাদামসহ বিভিন্ন ফসলের চাষ হয়েছে।

 আবদুল্লাহপুর ইউনিয়নের কৃষক জাহাঙ্গীর জানান, ১ একর জমিতে তিনি চিনাবাদাম ও মরিচ আবাদ করেছেন। সোমবার থেকে বৃষ্টি শুরু হওয়ায় সব শেষ হয়ে যাবে মনে হচ্ছে। তবে বৃষ্টি বাড়লে ক্ষতির পরিমাণ আরও বেড়ে যাবে।

ওসমানগঞ্জ ইউনিয়নের কৃষক ফারুক জানান, এ বছরে ১ একর ৬০ শতক জমিতে মুগডাল ও চীনাবাদামের চাষাবাদ করেছি। সার-ঔষাধের দাম হওয়ায় খরচ হয়েছে ব্যাপক। দুই দিনের টানা বৃষ্টিতে খেতে পানি জমে গেছে। এতে করে বাতাম পঁচে যাবে আমাদের অনেক ক্ষতি হয়ে যাবে। বিভিন্ন জনের কাছ থেকে ধার-দেনা করে চাষাবাদ করেছি।
চরফ্যাশন উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ ওমর ফারুক জানান, ঘূর্ণিঝড় অশনির প্রভাবে টানা দুই দিন বৃষ্টি হচ্ছে। বিভিন্ন এলাকায় খেতে পানি জমে গেছে। আমরা সার্বক্ষনিক মনিটরিং করছি এবং কৃষকদের খোঁজ খবর নিচ্ছি। বিশেষ করে চীনাবাদাম ও মরিচের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। আরো কয়েকদিন বৃষ্টি হলে লোকসানে পড়তে হবে কৃষকদের।