চট্টগ্রাম মহানগরে চল্লিশ হাজার টিউবলাইটের পাশাপাশি পাঁচ হাজার এলইডি স্থাপন

101
চট্টগ্রাম মহানগরে চল্লিশ হাজার টিউবলাইটের পাশাপাশি পাঁচ হাজার এলইডি স্থাপন
চট্টগ্রাম মহানগরে চল্লিশ হাজার টিউবলাইটের পাশাপাশি পাঁচ হাজার এলইডি স্থাপন

চসিক বিদ্যুৎ বিভাগের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সাথে মতবিনিময় সভায় বক্তব্য রাখেন ভারপ্রাপ্ত মেয়র মো. গিয়াস উদ্দীন মো.মুক্তার হোসেন বাবু,চট্টগ্রাম ব্যুরো: চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের ভারপ্রাপ্ত মেয়র মোহাম্মদ গিয়াস উদদীন বলেছেন, নগরজুড়ে এলইডি বাতির ধবধবে সাদা আলোর মাধ্যমে নগরীকে আলোকিত করা হবে। চসিকের

বিদ্যুৎ বিভাগের যে অব্যবস্থাপনা আছে তা দক্ষ জনবলের কারণে হোক বা অন্য যে কোনো কারণে হোক না কেন তা চিহ্নিত করে দ্রুত সমাধানের ব্যবস্থা করা হবে। তিনি আরো বলেন, নগরীতে চল্লিশ হাজার টিউবলাইট জ্বলে অন্যদিকে নগরীতে পাঁচ হাজার এলইডি স্থাপন করা হয়েছে। এ বাতিগুলোর আলোকায়নের ক্ষেত্রে শতভাগ রক্ষণাবেক্ষণ ও তদারকির মাধ্যমে সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনা নিশ্চিত করতে তিনি বিদ্যুৎ বিভাগকে নির্দেশনা প্রদান করেন।

গতকাল সোমবার অপরাহ্ণে চসিকের আন্দরকিল্লা পুরাতন ভবনের কেবি আব্দুস সত্তার মিলনায়তনে বিদ্যুৎ স্ট্যান্ডিং কমিটির সদস্য কাউন্সিলর হাসান মুরাদ বিপ্লবের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এক মতবিনিময় সভায় তিনি এই কথা বলেন। এতে আরো বক্তব্য রাখেন কাউন্সিলর জহরলাল হাজারী, ওয়াসিম উদ্দিন চৌধুরী, তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী

ঝুলন কুমার দাস, নির্বাহী প্রকৌশলী রেজাউল বারী ভূঁইয়া, জাহিদুল আলম চৌধুরী, জাকির হোসেন প্রমুখ। ভারপ্রাপ্ত মেয়র আরো বলেন, আগামীতে স্মার্ট ম্যানেজমেন্ট সিস্টেমের মাধ্যমে সড়কবাতির গুলো সুইচ নিয়ন্ত্রণ করা হবে যার জন্য স্থাপন করা হবে চারটি কেন্দ্রীয় সার্ভার স্টেশন যেখান থেকে সহজে অন অফ, কমানো বাড়ানো

যাবে এছাড়া বেশি পরিমাণ বিদ্যুৎ অপচয় না হয় মতো ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। তিনি শহরের সৌন্দর্য, ব্যাবসায়িক সুবিধা,সামাজিক নিরাপত্তা ও পরিবেশবান্ধব প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে ট্রাফিক ও পথচারীদের জন্য স্মার্ট ম্যানেজমেন্ট সিস্টেমের মাধ্যমে এগুলো নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভবপর হলে একটি আলোকোজ্জ্বল নগরী হিসেবে সবার সম্মুখে

দৃশ্যমান হবে বলে অভিমত ব্যক্ত করেন ।প্রসঙ্গক্রমে তিনি বলেন,চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন বাংলাদেশের বিরাজমান ১২ টি সিটি কর্পোরেশন এর মধ্যে অনন্য একটি প্রতিষ্ঠান যে প্রতিষ্ঠানটি তাদের নির্দিষ্ট কর্মকাণ্ডের বাইরেও শিক্ষা এবং স্বাস্থ্য ক্ষেত্রে অবদানের মাধ্যমে শিক্ষা নাগরিক সেবা প্রদান করা যাচ্ছে। এজন্য চট্টগ্রাম সিটি

করপোরেশনকে প্রচুর জনবল ও ব্যয় ভার বহন করতে হয় তা সর্বমহলে অবগত করা প্রয়োজন বলে তিনি অভিমত ব্যক্ত করেন। তিনি উল্লেখ করেন প্রধানমন্ত্রী চট্টগ্রামের প্রতি সর্বোচ্চ আন্তরিকতা প্রকাশ করে চট্টগ্রামের জন্য যে হাজার কোটি টাকার মেগা প্রকল্প গুলো দিয়েছেন তা বাস্তবায়ন করতে না পারলে আমাদের জন্য অত্যন্ত দুঃখজনক হবে।