চট্টগ্রামে জাহানারার চোখের আলো নিভিয়ে উধাও প্যারামেডিক

121
চট্টগ্রামে প্যারামেডিক বাবুল আকতারের ভুল অপারেশনে চোখ অপারেশন করে কোরআন পড়ার স্বপ্ন দেখা জাহানারা (৪২) হারিয়েছেন চিরতরে চোখের আলো।
চট্টগ্রামে প্যারামেডিক বাবুল আকতারের ভুল অপারেশনে চোখ অপারেশন করে কোরআন পড়ার স্বপ্ন দেখা জাহানারা (৪২) হারিয়েছেন চিরতরে চোখের আলো।

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি : প্যারামেডিক বাবুল আকতারের ভুল অপারেশনে চোখ অপারেশন করে কোরআন পড়ার স্বপ্ন দেখা জাহানারা (৪২) হারিয়েছেন চিরতরে চোখের আলো।

সম্প্রতি অনুমোদনহীন ভুয়া চক্ষু হাসপাতাল আগ্রাবাদ চক্ষু হাসপাতাল নামক হাসপাতালে চক্ষু অপারেশন করান গৃহবধূ জাহানারা (৪২)। তার চোখের ছানি অপারেশন হবে বলে তাকে অপারেশন করা হয়।

রোগীর ছাড়পত্র ও পোষ্ট অপারেটিভ কোনো কাগজে নেই সার্জনের নাম,সিল। অপারেশন এর ২দিন পর ব্যান্ডেজ খোলার পর রোগী কিছুই দেখতে পান না,বরং পূর্বে যতটুকু দেখতো তাও হারিয়েছেন। পাশাপাশি জাহানারা তার ভালো চোখটিতেও ঝাপসা দেখতে থাকেন।

এ বিষয়ে হাসপাতাল কতৃপক্ষের সাথে কথা বলতে চাইলে তারা প্রতিষ্ঠান তালা দিয়ে পালিয়ে যান।তবে এক সোস্যাল মিডিয়াতে হাসপাতালের মালিক দিদার জানান,বাবুল আকতার চট্টগ্রামের আরো কিছু হাসপাতালে অপারেশন করেন।

ভুয়া কথিত প্যারামেডিক বাবুল আকতার জানান, তার অপারেশন এর সময় তার সাথে ডাক্তার থাকেন। কোন ডাক্তার থাকেন প্রশ্ন করার আগেই তিনি ফোনে কথা বলতে নারাজ এবং ব্যাস্ততা দেখান।

তিনি আরো জানান, তিনি বন্দরনগরীর জালালাবাদ, কাপ্তাই রাস্তার মাথা মোহরা, আগ্রাবাদ, পাচলাইশ, রাহাত্তারপুল এর মত গুরুত্বপূর্ণ সেন্সিটিভ এলাকা গুলিতে বিভিন্ন হাসপাতালে অপারেশন করেন।

গত ১২ মার্চ জাহানারার ব্যাপারে তার সাথে মুঠোফোনে কথা বলতে চাইলে তিনি ব্যাস্ত আছেন বলে বিষয়টি এড়িয়ে যান এবং ফোন কেটে দেন। পুনরায় ফোনে কথা বলতে চাইলে তার মুঠোফোনটি সুইচড অফ পাওয়া যায়।

জাহানারার পরিবার জানান,ভুক্তভোগীদের টাকা দেয়ার প্রস্তাব দেন তবে তারা টাকা চান না।তারা চোখের বদলে চোখ চান।জাহানারা বাকি জীবন পৃথিবীর আলো দেখুক সেটাই এখন ভুক্তভোগী পরিবারের চাওয়া।

বিষয়টি নিয়ে বিএমএ সাধারণ সম্পাদক ডা.ফয়সাল ইকবাল চৌধুরী জানান, প্যারামেডিক অপারেশন করতে পারবেন না,এমনকি চক্ষু নিয়ে প্র‍্যাক্টিস ছাড়া এমনি যেকোনো কেও চোখের অপারেশন করা মানে রোগীকে ঝুকিতে ফেলা এবং মেডিকেল আইন বর্হিঃভূত।

তিনি আরো জানান, প্রশাসন যদি এইসব অন্যায়ের প্রতি আইনানুগ ব্যাবস্থা নিলে বিএমএ পাশে থাকবে।

চট্টগ্রাম গ্রামীণ চক্ষু হাসপাতাল’র সিনিয়র কনসালটেন্ট ওসার্জন ডা.জয়নুল আবেদীন বলেন, বেশ কিছু ডাক্তার এইসব প্যারামেডিকদের মাথায় তুলেছেন।প্যারামেডিক কোনোভাবেই চক্ষু অপারেশন করতে পারে না। আর যেসব হাসপাতাল তাদের প্রশ্রয় দিয়ে অপারেশন করাচ্ছে তাদের বুঝা উচিত চোখ কোনো সাধারণ বিষয় নয়।

ডা. শফিকুল ইসলাম (আরএমও, র‍্যাব-৭) বলেন, চোখ একটি সেন্সিটিভ পার্ট অব দ্য বডি। যেকোনো কেউ চোখের চিকিৎসা করতে পারবেন না। সম্প্রতি সোস্যাল মিডিয়াতে এক গৃহীনির যে ভিডিও ও নিউজ ভাইরাল হতে দেখেছি আসলেই এটা দুঃখজনক। অতি দ্রুত এসব বন্ধ না হলে রোগীরা ডাক্তারের প্রতি আস্থা হারাবেন।