গাইবান্ধায় নয় মাস পর কবর থেকে বৃদ্ধার বাড়ি ফেরার খবরে তোলপাড় (ভিডিও)

1619

বাছিরন বেওয়া। গাইবান্ধার পৌর এলাকার এই বৃদ্ধা নয় মাস আগে মৃত্যুবরণ করেন। স্টেশন জামে মসজিদে তার জানাজা হয়। নামাজে জানাজা শেষে পৌর কবরস্থানে তার দাফনও সম্পন্ন হয়।

কিন্তু সম্প্রতি খবর ছড়ায়, মৃত বাছিরন বেওয়া নাকি কবর থেকে উঠে এসে নিজের ছেলের বাড়িতে অবস্থান নিয়েছেন। চাঞ্চল্যকর এমন খবরে পুরো এলাকায় তোলপাড় ওঠে। উৎসুক লোকজন ভিড় জমায় বাছিরন বেওয়াকে একনজর কাছ থেকে দেখার জন্য।

বুধবার, ১১ মে সকালে খবর চাউর হয়, মারা যাওয়ার নয় মাস পর বাছিরন বেওয়াকে তার ছেলের বাড়িতে জীবিত অবস্থায় পাওয়া গেছে। তার ছেলে গাইবান্ধা পৌর এলাকায় অবস্থিত ডেভিট কোম্পানি পাড়ার আব্দুর রশিদ গেদা।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, বাছিরন বেওয়া নয় মাস আগে মৃত্যুবরণ করেন। তার স্বামী মৃত বাহার শেখ। স্টেশন জামে মসজিদে বাছিরন বেওয়ার নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। এরপর তাকে পৌর কবরস্থানে দাফন করা হয়।

কিন্তু বুধবার সকালে আব্দুর রশিদ গেদার বাড়িতে তার মা বাছিরন বেওয়ার মতো দেখতে এক বৃদ্ধাকে পাওয়া যায়। এই কথা এক কান দুই কান করে পুরো এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে হইচই পড়ে যায়। বহু মানুষ ভিড় করতে থাকেন আব্দুর রশিদ গেদার বাড়িতে। এমনকি পুলিশকেও খবর দেওয়া হয়। পরে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে ওই বৃদ্ধাকে থানায় নিয়ে যায়।

এ প্রসঙ্গে আব্দুর রশিদ গেদা বলেন, মঙ্গলবার রাতে স্টেশন এলাকায় একজন বৃদ্ধাকে ঘোরাঘুরি করতে দেখি। তার চেহারা আমার মায়ের মতোই। কিছুক্ষণ কথা হয় তার সঙ্গে। এরপর তিনি শুয়ে পড়লে একটি কয়েল জ্বালিয়ে দিয়ে বাসায় ফিরে আসি। কিন্তু পরদিন বুধবার সকালে কে বা কারা তাকে আমার বাসায় রেখে যায়।

এদিকে ঘটনাটিকে স্রেফ গুজব বলে উড়িয়ে দিয়ে গাইবান্ধা সদর থানার ওসি (তদন্ত) মো. ওয়াহেদুল ইসলাম জানান, কবর থেকে লাশ উঠে আসার খবর গুজব ছাড়া আর কিছুই না। আটককৃত বৃদ্ধা দেখতে অনেকটাই মৃত বাছিরন বেওয়ারের মতো। এজন্য এলাকায় হইচই পড়ে যায়। খবর পেয়ে এসআই জাহাঙ্গীরকে ঘটনাস্থলে পাঠানো হয়। তিনি বৃদ্ধা এবং বাড়ির মালিক আব্দুর রশিদকে থানায় নিয়ে আসেন। পরে তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়।

জিজ্ঞাসাবাদে আনুমানিক ৭৫ বছর বয়সী ওই বৃদ্ধা জানান, তার নাম পদ্ম রানি। বাবার নাম বাচা চন্দ্র। বাড়ি খুলনার আশাশনি থানার মৎস কালিবাড়ি এলাকায়। তিনি আরও জানান, ট্রেনে ভিক্ষা করতে করতে তিনি গাইবান্ধায় আসার পর ট্রেন থেকে নেমে পড়েন।

মানসিকভাবে কিছুটা অসুস্থ বৃদ্ধা পদ্ম রানি। তার পরিচয় নিশ্চিত হওয়ার পর তার পরিবারের লোকজনদের খবর দিয়ে তাদের কাছে ফিরিয়ে দেওয়া হবে পদ্ম রানিকে।