কোরবানির বাজার কাঁপাতে প্রস্তত শার্শার “কালা পাহাড়”

114
কোরবানির বাজার কাঁপাতে প্রস্তত শার্শার
কোরবানির বাজার কাঁপাতে প্রস্তত শার্শার "কালা পাহাড়"

ইয়ানূর রহমান, নিজস্ব প্রতিনিধি : আসন্ন ঈদুল আজহাকে সামনে রেখে “কালা পাহাড়” নামে একটি দেশীয় গরু প্রস্তুত করেছেন শার্শা সদরের রুহুল আমিন নামের এক খামারী মালিক। যদিও লাল পাহাড় ও সাদা পাহাড় নামের আরো দুটি বিশাল আকারের গরু রয়েছে তার খামারে।

গত ১৬ মাসের দীর্ঘ পরিশ্রমের ফসল “কালা পাহাড়, লাল পাহাড় ও সাদা পাহাড়” নামের এ তিনটি গরু। সম্পূর্ণ প্রকৃতিক খাবার খাওয়াইয়ে মোটাতাজা করেছেন এই গরুগুলিকে খামারী রুহুল আমিন।

গরুগুলির শরিরের রংয়ের সাথে মিল রেখে তিনি নাম রাখেন। সম্পূর্ন প্রকৃতিক উপায়ে লালন পালন করেছেন। ঘাস, বিচালি, পালিশ কুড়া, ভুট্টা গরুগুলির প্রধান খাদ্যছিল।

এখন এই কালা পাহাড় ও সাদা পাহাড়ের ওজন হয়েছে ১৪ শ কেজি করে। দ্রব্যমূল্যের এই উর্দ্ধগতির বাজার হিসাবে এখন গরু দুটির দাম নির্ধারণ করেছেন ৭ থেকে ৮ লাখ টাকা। তবে অতি যত্নে পোষা গরু দুটির নির্ধারিত দামের সাথে আলোচনা সাপেক্ষে কম বেশি করে বিক্রি করবেন বলে জানান খামারী রুহুল আমিন। তবে লাল পাহাড়ের দাম হাকছেন ৫ থেকে ৬ লাখ টাকা।

আসন্ন কোরবানি ঈদে তার এই বিশাল আকৃতির গরু লাল বাদশাকে বিক্রি করার বিষয়ে জানতে চাইলে ইকরামুল ইসলাম বলেন, আমি কোন রকম ভাবে গরু মোটাতাজা করার জন্য কোন ডাক্তারি ফর্মূলা ব্যবহার করিনি। সম্পূর্ণ প্রাকৃতিক ও সুষম খাবার খাওয়াইয়ে এবারের কোরবানির ঈদের জন্য প্রস্তত করেছি।

তাছাড়া বর্তমান সময় গোখাদ্যের যে পরিমান মূল্য বৃদ্ধি হয়েছে তাতে করে একাধিক গরু লালন পালন করা ছোট খামারিদের জন্য অনেক কষ্টের। আশা করছি আমার লাল বাদশাকে সকলের পছন্দ হবে। তাই সার্বিক যোগাযোগের জন্য নিজের মোবাইল নং দিয়েছেন তিনি। যার নং ০১৭৩৪-০১৮৩৭৫।