ইলিশের উৎপাদন বেড়েছে প্রায় দ্বিগুণ

110

বরগুনা প্রতিনিধি : ইলিশের উৎপাদন বেড়েছে প্রায় দ্বিগুণ।  ফলে সরকারের রাজস্ব বেড়ে দাঁড়িয়েছে এক কোটি ৯২ লাখ ৯২ হাজার ৩২৯ টাকা। বাংলাদেশের দ্বিতীয় মৎস্য অবতরণ কেন্দ্র পাথরঘাটা মৎস্য অবতরণ কেন্দ্র সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

পাথরঘাটা মৎস্য অবতরণ কেন্দ্রের ব্যবস্থাপক মির রাশেদুল ইসলাম জানান, ২০২০-২১ অর্থবছরে এক হাজার ১৫২ দশমিক ৫৬ মেট্রিক টন ইলিশ ও এক হাজার ৫৮১ দশমিক ৩৬ মেট্রিক টন সামুদ্রিক নানা প্রজাতির মাছ বিক্রি হয়েছে। ২০২১-২২ অর্থবছরে দুই হাজার ৪৭৫ দশমিক ৯৩ মেট্রিক টন ইলিশ ও দুই হাজার ৩২৪ দশমিক ২১ মেট্রিক টন সামুদ্রিক নানা প্রজাতির মাছ বিক্রি হয়েছে। বিক্রিত মাছের মূল্য থেকে শতকরা এক টাকা ২৫ পয়সা হারে রাজস্ব আদায় করা হয়। সে হিসেবে ২০২০-২১ অর্থবছরে রাজস্ব আদায় হয়েছে ৯৯ লাখ ৯৬ হাজার ৬৫৬ টাকা। ২০২১-২২ অর্থবছরে রাজস্ব আদায় হয়েছে এক কোটি ৯২ লাখ ৯২ হাজার ৩২৯ টাকা।

পাথরঘাটা মৎস্য অবতরণ কেন্দ্রের হিসাব মতে, বছরের ব্যবধানে বিক্রির উদ্দেশ্যে সমুদ্র ও নদী থেকে শুধু এ মৎস্য অবতরণ কেন্দ্রে গত অর্থবছরের চেয়ে এক হাজার ৩২৩ দশমিক ৩৭ মেট্রিক টন ইলিশ বেশি এসেছে।

বাংলাদেশ ফিশিং বোর্ড মালিক সমিতির সভাপতি মোস্তফা চৌধুরী জানান, চার-পাঁচ বছর আগে সমুদ্রে ইলিশের আকাল দেখা দিয়েছিল। সমুদ্র থেকে খালি হাতে ফিরতে হতো জেলেদের। সামান্য কিছু ইলিশ ধরা পড়লেও সাইজ ছিল ছোট। বর্তমানে বড় ইলিশে ভরে যায় অবতরণ কেন্দ্র। নিষেধাজ্ঞার বাইরে যতটুকু সময় পাওয়া যায় তাতে সমুদ্রে গিয়ে খালি হাতে ফিরতে হয় না জেলেদের। ট্রলারভর্তি ইলিশ নিয়ে ফেরেন জেলেরা। সে ইলিশের ৮০ শতাংশই বড় সাইজের।

সূত্র জানায়, ইলিশের উৎপাদন বাড়াতে জাটকা ও প্রজনন মৌসুমে ইলিশ ধরা নিষিদ্ধ, অভয়াশ্রম, জাটকা সংরক্ষণ সপ্তাহ পালন, সাগরে ৬৫ দিন মাছ ধরা নিষিদ্ধ, বিশেষ কম্বিং অপারেশনসহ বিভিন্ন পদক্ষেপ রয়েছে সরকারের। এসব উদ্যোগের কারণেই দক্ষিণাঞ্চলে ইলিশের উৎপাদন বাড়ছে। এতে উপকূলীয় জেলেরা বেশ ভালোই ইলিশ আহরণ করেছেন।

পাথরঘাটা উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা জয়ন্ত কুমার অপু জানান, এখন প্রজনন মৌসুমে মা ইলিশ সঠিকভাবে ডিম ছাড়তে পারে। ডিম থেকে জাটকায় রূপান্তরিত ইলিশ রক্ষায় পালন করা হয় জাটকা সংরক্ষণ সপ্তাহ, ছয় মাসের নিষেধাজ্ঞা দিয়ে রক্ষা করা হয় জাটকাকে। জাটকা রক্ষা পাওয়ায় ইলিশের উৎপাদন বেড়েছে। এছাড়াও ৬৫ দিনের জন্য সমুদ্রে দেওয়া নিষেধাজ্ঞায় সব ধরনের মাছ বড় হচ্ছে। আগামী কয়েক বছরে সামুদ্রিক মাছের উৎপাদন আরও কয়েকগুণ বাড়বে বলেও জানান তিনি।