অপহরণের দেড় মাসেও স্কুলছাত্রীর সন্ধান মেলেনি

74
অপহরণের দেড় মাসেও স্কুলছাত্রীর সন্ধান মেলেনি
অপহরণের দেড় মাসেও স্কুলছাত্রীর সন্ধান মেলেনি

মোঃ মশফিকুর রহমান, গাইবান্ধা জেলা প্রতিনিধি : গাইবান্ধার পলাশবাড়ী পৌরশহরের শিশু কানন স্কুল এন্ড কলেজের অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী মোছা. তানিয়া ইসলাম রিয়াকে (১৩) অপহরণের পর দেড় মাসেও তার সন্ধান মেলেনি।

জানা যায়, তানিয়া ইসলাম রিয়া গত ৩১ মে আনুমানিক সকাল ৮টায় স্কুল যাওয়ার কথা বলে বাড়ি থেকে বের হয়ে গেলেও আর বাড়ি ফেরেনি। রিয়ার পরিবার তাকে অনেক খোঁজাখুঁজি করে না পেয়ে পরে পলাশবাড়ী থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (নং- ৬২, তাং- ০২/০৬/২০২) করেন।

পরবর্তীতে অধিক খোঁজাখুজির পর আব্দুল হামিদ নামীয় প্রত্যেদর্শী মারফৎ জানা যায় ঘটনার দিন কিশেরাগাড়ী ইউপির দিঘলকান্দী গ্রামের মোহাম্মদ আলী সরদারের ছেলে মো. শাকিল মাহমুদ (২২)সহ সঙ্গীয় নাবালিকা রিয়াকে ঘোড়াঘাট রোডে মাসুদ মিয়ার মাইক্রোবাস গ্যারেজের সামনে হতে জোরপূর্বক সিএনজিতে উঠিয়ে নেয়। স্থানীয় ২/১ জন সিএনজিকে ধাওয়া করলেও চালক দ্রুত গতিতে পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়।

রিয়ার বাবার ভাষ্যমতে, বখাটে শাকিল আমার নাবালিকা মেয়েকে স্কুল যাতায়াতের সময় প্রায়ই পথরোধসহ নানা অশালীন কথা বলতো যা আমার মেয়ে আমাকে অবহিত করে। আমি বখাটে শাকিলকে অনেক বুঝানোর পরেও বোঝাতে সক্ষম হইনি। বোঝানোর সময় দু-একটি কড়া কথাও আমি বলে ফেলি। তখন ওই বখাটে যুবক আমাকে শাসিয়ে বলে, আপনার মেয়েকে উঠিয়ে নিয়ে যাবো। আপনি পারলে ঠেকান। বখাটে যুবক যা বলেছে তাই করে দেখিয়েছে।

রিয়ার বাবা আরও বলেন, প্রত্যক্ষদর্শীর কাছ হতে অপহরণের বর্ণনা জানতে পেরে পুনরায় ১৮/০৬/২০২২ তারিখে থানায় একটি অপহরণ মামলা দায়ের (নং-২১৬৬,৪/১) করি। কিন্তু মামলা দায়েরের দেড় মাস অতিবাহিত হলেও পুলিশ রিয়াকে উদ্ধার করতে সক্ষম হয়নি। এদিকে মেয়েকে না পাওয়ায় একেবারে নাওয়া-খাওয়া ছেড়ে অসুস্থ হয়ে পড়েছে রিয়ার মা।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা সাব-ইন্সপেক্টর মোল্লা মো. জাহাঙ্গীরের কাছে বিষয়টি জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমাদের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে। এদিকে রিয়ার বাবা-মা, শিক্ষক-বন্ধু-বান্ধবসহ এলাকাবাসী প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের আন্তরিক সহযোগিতা কামনা করেছেন।